মুর্শিদাবাদে বাস দুর্ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্তের দাবিতে স্মারকলিপি

চন্দন দাস, কোচবিহারঃ মুর্শিদাবাদে মর্মান্তিক বাস দুর্ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্তের দাবি সহ তিন দফা দাবিতে স্মারকলিপি দিল নর্থ বেঙ্গল স্টেট ট্রান্সপোর্ট এমপ্লয়িজ ইউনিয়ন। শনিবার সংগঠনের পক্ষ থেকে উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ নিগমের ম্যানেজিং ডাইরেক্টর সুবল রায়কে স্মারকলিপি দেওয়া হয়। সেখানে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের কোচবিহার জেলা সভাপতি জগৎ জ্যোতি দত্ত, সাধারণ সম্পাদক গৌতম কুণ্ডু ও অন্যান্য সদস্যরা। এদিন সংগঠনের পক্ষ থেকে ঠিকাদারের মাধ্যমে ড্রাইভার ও কন্ডাক্টর যাতে নিয়োগ না করা হয়, তারও দাবি জানানো হয়।

পাশাপাশি উত্তরবঙ্গ পরিবহণ সংস্থাকে বেসরকারি করণের চেষ্টার অভিযোগ, তুলেও বিক্ষোভ দেখান সংগঠনের কর্মী সদস্যরা। তাদের অভিযোগ, একটি বেসরকারি সংস্থা নতুন করে আরও চার শতাধিক ড্রাইভার ও কন্ডাক্টর নিয়োগ করতে চলেছে। এই ক্ষেত্রেও কোন পরিবহণ সংস্থার এক্সপার্ট বা উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ সংস্থার কোন এক্সপার্ট দিয়ে সেই সমস্ত ড্রাইভারকে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে না বলেও অভিযোগ। শুধুমাত্র ব্যক্তিগত পরামর্শের মধ্যে দিয়ে এই নিয়োগ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ। নতুন নিয়োগের ক্ষেত্রে উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ সংস্থার এক্সপার্ট দিয়ে ড্রাইভার ও কন্ডাক্টরদের পরীক্ষা নিরীক্ষার করার দাবি জানিয়েছে সংগঠনের সদস্যরা। তাদের দাবি না মানলে পরবর্তীতে বৃহত্তর আন্দোলনে করা হবে বলে সংগঠনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

নর্থ বেঙ্গল স্টেট ট্রান্সপোর্ট এমপ্লয়িজ ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক গৌতম কুণ্ডু বলেন, “দৌলতাবাদের বালি ব্রিজে বাস দুর্ঘটনায় নিহতদের আত্মার শান্তি কামনা করি। আমরা দীর্ঘদিন থেকে দাবি করে আসছি উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণের গাড়ি গুলি ফ্রাঞ্চাইজির মাধ্যমে ব্যক্তি মালিকানায় দিয়ে দেওয়ার বিরুদ্ধে আমরা আন্দোলন করছি। এই বাস দুর্ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্তের দাবি জানাচ্ছি। একটি বেসরকারি সংস্থা নতুন করে আরও চার শতাধিক ড্রাইভার ও কন্ডাক্টর নিয়োগ করতে চলেছে। এই ক্ষেত্রেও কোন পরিবহণ সংস্থার এক্সপার্ট বা উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ সংস্থার কোন এক্সপার্ট দিয়ে সেই সমস্ত ড্রাইভারকে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে না। আমরা নিয়োগের বিপক্ষে নই। কিন্তু আমাদের দাবি উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ সংস্থার এক্সপার্ট দিয়ে ড্রাইভার ও কন্ডাক্টরদের পরীক্ষা নিরীক্ষার মাধ্যমে নিয়োগ করা হোক। আমরা এই সব দাবিতে ম্যানেজিং ডাইরেক্টরকে স্মারকলিপি দিচ্ছি। আমাদের এই বিষয়গুলি না বিবেচনা করা হলে উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ সংস্থাকে বাঁচানোর উদ্দেশ্যে বৃহত্তর আন্দোলনে নামা হবে।”