৪৮ লক্ষ টাকার গাঁজা সহ হাসিমারি আটক ১, তদন্তে পুলিশ

আলিপুর দুয়ার, ৪ আগস্টঃ গাঁজা সহ এক ব্যক্তিকে আটক করল এসএসবি জওয়ানরা। গোপন সুত্রে খবর পেয়ে হাসিমারি-আলিপুর দুয়ার জাতীয় সড়কে গাঁজা ভর্তি একটি পিকআপ ভ্যান আটক করে তল্লাসি চালিয় এসএসবি জওয়ানরা। তল্লাসি চালিয়ে ওই পিকআপ ভ্যানের ছাদ থেকে ৩১টি গাঁজার প্যাকেট উদ্ধার করে। উদ্ধার হওয়া গাঁজার পরিমান ৩১৯ কেজি বলে পুলিশ সুত্রে জানা গিয়েছে। পরে ওই এস এস বি জওয়ানরা ধৃত ওই ব্যক্তিকে হাসিমারা থানার পুলিশের হাতে তুলে দেয়।

জানা গেছে, ওই গাঁজা পিকআপ ভ্যানটি শিলিগুড়ির দিকে যাচ্ছিল। সেই সময় গোপন সুত্রে খবর পেয়ে এস এস বি জওয়ানরা ওই গাড়িটিকে তল্লাসি চালিয়ে ওই ৩১ পযাকেত গাঁজা উদ্ধার করে। সঙ্গে গাড়ির চালক কে আটক করে হাসিমারা থানার পুলিশের হাতে তুলে দেয়।

পুলিশ সুত্রে জানা যায়, ধৃত ওই যুবকের নাম নরেন দত্ত(৭০)। তার বাড়ি সুরজাপুরের বেলতলা বাজার এলাকায়। ওই পিকআপ ভ্যানের ছাদ থেকে ৩১ প্যাকেট গাঁজা উদ্ধার হয়। ওই ৩১ প্যাকেট গাঁজার মধ্যে মোট ৩১৯ কেজি গাঁজা ছিল বলে জানা যায়। ওই গাঁজার আনুমানিক বাজার মূল্য প্রায় ৪৮ লক্ষ টাকা বলে পুলিশ জানিয়েছে। ধৃত ওই ব্যক্তিকে আগামি কাল জলপাইগুড়ি আদালতে তোলা হবে জানা গেছে।

সারাদিনের সেরা খবর – ০৪ আগষ্ট ২০১৮

সারাদিনের বাছাই করা খবর
প্রতিদিন আমাদের ওয়েবসাইট ভিসিট করুন প্রতিদিনের গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলি পাবার জন্য।

অসম ইস্যুতে মিছিলে ধস্তাধস্তিত তৃণমূল-বিজেপির কর্মীদের, উত্তেজনা মালদায়

মালদহ, ৪ আগস্টঃ মালদা শহরের পোষ্ট অফিস মোড়ে ধস্তাধস্তিতে জড়িয়ে পড়ল তৃণমূল ও বিজেপির কর্মীরা। শনিবার দুপুরে আসাম ইস্যুতে দুই পক্ষই একে অপরের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়ে প্রতিবাদ মিছিল বার করে। বিজেপির মিছিল গোটা শহর পরিক্রমা করে পোষ্ট অফিস মোড়ে শেষ হয়। সেই সময় নেতাজি মোড় থেকে তৃণমূল কংগ্রেসের মিছিল পোষ্ট অফিস মোড়ে পৌঁছায়। সেখানেই দুই পক্ষ একে অপরের বিরুদ্ধে স্লোগান দেওয়ার সময় ধস্তাধস্তিতে জড়িয়ে পরে। যদিও উপস্থিত পুলিশ কর্তা ও দুই পক্ষের নেতাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

উল্লেখ আসাম ইস্যুতে বর্তমানে তোলপাড় গোটা দেশ। এরি মধ্যে বৃহস্পতিবার আসামে যায় তৃণমূলের জনপ্রতিনিধিদের এক প্রতিনিধি দল। কিন্তু আসাম প্রশাসন তাদের বিমান বন্দরেই আটকে দেয়। ঘটনার প্রতিবাদে গোটা রাজ্য সহ মালদা জেলা জুড়ে কালাদিবস পালন করছে তৃনমূল কংগ্রেস। শুক্রবার মালদা জেলা তৃণমূলের পক্ষ থেকে শহরের নেতাজি মোড় থেকে এক প্রতিবাদ মিছিল বার করা হয়। উপস্থিত ছিলেন জেলা সভাপতি দুলাল সরকার সহ একাধিক নেতৃত্ব। অপর দিকে রাজ্য সরকারের বিরোধীতা করে এনআরসি চালুর দাবীতে প্রতিবাদ মিছিল করে মালদা জেলা বিজেপি নেতৃত্ব। শহরের দুই প্রান্ত থেকে শুরু হয় মিছিল দুটি। মিছিল শেষে পোষ্ট আফিস মোড়ে জমায়েত হন বিজেপির কর্মীরা। সেই সময় পোষ্ট আফিস মোড়ে পৌঁছায় তৃণমূলের মিছিলটি। দুই বিরোধী মিছিল মুখোমুখি পড়লে শুরু হয় স্লোগান পাল্টা স্লোগান। সেই সময় দুই পক্ষের কিছু কর্মী ধাক্কাধাক্কিতে জড়িয়ে পড়ে। উপস্থিত পুলিশ আধিকারীক ও দুই দলের নেতাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

এই বিষয়ে বিজেপির জেলা সভাপতি সঞ্জিত মিশ্র বলেন, “আমাদের কর্মসূচি চলাকালীন তৃণমূলের কর্মীরা গন্ডগোল পাকানোর চেষ্টা করে। আমাদের কর্মীরা প্রতিবাদ জানায়। পরে বেগতিক দেখে পালিয়ে যায় তারা। তেমন কিছু হয়নি। আমরা পরিস্থিতি স্বাভাবিক করি।” পাল্টা অভিযোগ করে জেলা তৃণমূলের সভাপতি দুলাল সরকার বলেন, “আমাদের মিছিল চলাকালীন বিজেপির কর্মীরা আমাদের কর্মীদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। আমাদের কর্মীরা এর প্রতিবাদ জানায়। তবে আমাদের নেতৃত্বরা গিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে।”

কবি নিত্য মালাকারের স্মরণ সভা মাথাভাঙ্গায়

মাথাভাঙ্গা, ৪ আগস্টঃ কবি নিত্য মালাকারের স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হল মাথাভাঙ্গায়। শনিবার বিকেলে মাথাভাঙ্গার রেবতী রমন সেবা সংঘ টাউন লাইব্রেরীতে এই স্মরণ সভা হয়। এদিনের এই স্মরণ সভায় উপস্থিত ছিলেন ডঃ আনন্দ গোপাল ঘোষ, কবি সন্তোষ সিংহ, কবি অনুভব সরকার, লেখক বিমল বসাক, লোক সংস্কৃতির গবেষক ধনেশ্বর বর্মন, আইনজীবী ভুবনেশ ভট্টাচার্য সহ আরও অনেকে।

এদিনের স্মরণ সভায় কবি নিত্য মালাকারের স্মৃতিচারণা, কবিতা পাঠ, আলোচনা করা হয়। এদিন সন্ধ্যা পর্যন্ত এই সভা চলে। এদিনের এই স্মরণ সভায় মাথাভাঙ্গার বিভিন্ন ক্লাব, সংগঠনের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

তোর্সার গ্রাসে স্কুলে বাড়ি, শিক্ষক-ছাত্রছাত্রীদের উদ্বেগে দিন কাটছে দামোদরপুরের

চন্দন দাস, কোচবিহারঃ ইতিমধ্যেই স্কুল বাড়ির অর্ধেক টা চলে গিয়েছে তোর্সা নদীর গর্ভে। তার মধ্যেই চলছে পঠন পাঠন। তবে আতঙ্কের মধ্যে। কখন পুরো বাড়িটা নদী গর্ভে বিলিন হয়ে যায়, সেই আতঙ্কে। খুব বেশী দূর নয়, কোচবিহার শহর লাগোয়া টাকাগাছ রাজারহাট গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত দামোদরপুর পঞ্চম পরিকল্পনা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এখন এমনই অবস্থা।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক শেখর চৌধুরীর কথায়, “বহুবার বহু জায়গায় বলা হয়েছে, ব্লক অফিস, স্কুল পরিদর্শকের দফতর, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা সংসদ। কিন্তু কোন কাজ হয় নি। আমাদের চোখের সামনে একটা স্কুল বাড়ি নদী গর্ভে চলে যাচ্ছে। এখানকার ছেলেমেয়েরা কোথায় লেখা পড়া করবে?” এমাসেই তিনি অবসর নেবেন, তারপরেও স্কুলের জন্য, স্কুলের ছোট ছোট ছাত্রছাত্রীদের জন্য শেখর বাবুর যেমন দুশ্চিন্তা, তেমনি ছাত্রছাত্রীদের মধ্যেও উদ্বেগ। ক্ষুদে পড়ুয়াদের কথায়, “অর্ধেক নদীতে চলে গিয়েছে, বাকি যে টুকু আছে, সেখানেই লেখাপড়া করছি। কিন্তু পুরোটা চলে গেলে কোথায় পড়ব আমরা?” উদ্বেগ ছড়িয়েছে অবিভাবকদের মধ্যেও। সেখানকার বাসিন্দা রসিদা বানু বলেন,“এইতিমধ্যেই স্কুলের শৌচাগার, মিড মিলের রান্না ঘর নদী গর্ভে চলে গিয়েছে। এখন স্কুল বাড়িটা বাকি আছে। তবে সেটারও নীচ দিক থেকে অর্ধেক মাটি সরে গিয়েছে। বাচ্চা গুলোর পরীক্ষা সামনে কি হবে বুঝতে পারছি না।”

শহর থেকে ভৌগলিক অবস্থানে দামোদরপুর অনেকটাই বিছিন্ন। তোর্সা নদী পেড়িয়ে যেতে হয় দামোদরপুর গ্রামে। দীর্ঘ সময় ধরে ভাঙন সমস্যায় ভুগছে সেখানকার মানুষ। সেখানকার অনেক মানুষ বাড়িঘর, চাষের জমি হারিয়ে এলাকা ছাড়া। কেউঅন্য কোথাও গিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন। কেউ আবার পরিবার পরিজন নিয়ে ভিন রাজ্যে চলে গিয়েছেন কাজের খোঁজে। ফলে স্কুলের ছাত্র সংখ্যা কমেছে। তবু আজও এখনও অনেক মানুষ বসবাস করছেন সেখানে। রয়েছে তাঁদের সন্তান সন্ততি। এত ছোট ছোট শিশুদের তো আর দূরের স্কুলে পাঠানো সম্ভব নয়, নদীর ওপাড়ে যে কোন স্কুলে ভর্তি করে দেওয়া হবে, বর্ষায় যখন নদী ভরে ওঠে তখন কি হবে? এরকম হাজারো প্রশ্ন অবিভাবকদের মধ্যে। স্কুলের সহকারী শিক্ষক বিদ্যুৎ পাল বলেন, “ ৫০ বছর হতে চলল এই স্কুল বাড়ির। যখন নির্মাণ হয়েছিল। তখন নদী অনেক দূরে। কেউ কখনো ভাবতেই পারে নি এই একদিন এই স্কুল বাড়ি টাকেই গ্রাস করে নেবে। এখন ছাত্র কমে গেছে। দুদিন বাদে হয় স্কুল বাড়ির বাকি টুকু চলে যাবে। আমরাও হয়ত অন্য কোথাও বদলি হয়ে যাবো। কিন্তু কি এই ছোট ছোট শিশুদের?”

বাস ভাড়া নিয়ে বিবাদ, মধ্যস্থতা করতে গিয়ে নিগৃহীত শিক্ষক

সত্যেন মহন্ত, রায়গঞ্জঃ সরকারি বাসে কন্ডাকটরের সাথে এক যাত্রী ভাড়া সংক্রান্ত বিবাদের মধ্যস্থতা করতে গিয়ে নিগৃহীত হলেন এক শিক্ষক। নিগৃহীত ওই শিক্ষকের নাম দীপক পোদ্দার। দীপকবাবু আজ রায়গঞ্জ-ভাটোল রুটের একটি সরকারি বাসে করে বিদ্যালয়ে যাচ্ছিলেন। বারোদুয়ারী মোড়ের কাছে বাসের অন্য এক যাত্রীর সাথে কন্ডাকটরের ভাড়া নিয়ে বিবাদ শুরু হয়। কন্ডাকটর ন্যায্য ভাড়া দাবি করলে যুবকটি তা দিতে অস্বীকার করেন।

স্কুলের জন্য দেরি হচ্ছে দেখে দীপকবাবু যুবকটিকে বোঝানোর চেষ্টা করতে গেলে তাঁর উপর চড়াও হয় ওই যুবক। ওই শিক্ষকের মুখে চোখে চর ও ঘুসি মারতে থাকে। ওই যুবকের মারে বাসের মধ্যেই রক্তাক্ত অবস্থায় পরে যান দীপকবাবু। বাসের বাকি যাত্রীরা তাকে এসে উদ্ধার করে তাকে রায়গঞ্জ হাসপাতালে নিয়ে যান। বর্তমানে তিনি রায়গঞ্জ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। বাসের কন্ডাকটর ও দীপকবাবু দুজনেই রায়গঞ্জ থানায় জানিয়েছেন। অভিযুক্ত ওই যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

“অসমের মুখ্যমন্ত্রী বাংলায় এলে যোগ্য জবাব দেওয়া হবে”, হুঙ্কার সুব্রত মুখার্জির

কলকাতা, ৪ আগস্টঃ “অসমের মুখ্যমন্ত্রী বাংলায় এলে যোগ্য জবাব দেওয়া হবে”। শনিবার গড়িয়াহাটে দলের কালাদিবস পালন কর্মসূচিতে গিয়ে একথা বললেন তৃণমূল কংগ্রেস নেতা সুব্রত মুখোপাধ্যায়। এদিন তিনি বলেন, “শিলচর বিমানবন্দরে আমাদের দলের সাংসদ ও বিধায়কদের সঙ্গে যা করা হয়েছে তার নজির নেই। কোনও সভ্য সরকার এরকম করতে পারে বলে আমি কল্পনা করতে পারি না। আর অসমের মুখ্যমন্ত্রী যদি কলকাতায় বেড়াতে আসেন তখন যোগ্য জবাব দেওয়া হবে। আমরা নয়, জনগণ জবাব দেবে। উত্তাল প্রতিবাদ জানানো হবে। উত্তপ্ত হয়ে উঠবে বাংলা”।

প্রসঙ্গত, এনআরসির প্রতিবাদে অসমে প্রতিনিধি দল পাঠায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবার ৮ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল শিলচর বিমানবন্দরে পৌঁছানো মাত্রই তাদের আটকানো হয়। অসম পুলিশের বিরুদ্ধে হেনস্থার অভিযোগ তোলেন প্রতিনিধি দলের সদস্যরা। গতকাল সকালে রাজ্যে ফিরে এবিষয়ে সরব হন প্রতিনিধি দলের সদস্যরা। ঘটনার প্রতিবাদে তৃণমূলের তরফে আজ ও কাল রাজ্যজুড়ে কালাদিবস পালন করা হচ্ছে। রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন তৃণমূল নেতা-কর্মীরা। আজ গড়িয়াহাটে বিক্ষোভ মিছিল করে তৃণমূল। মিছিলে উপস্থিত ছিলেন সুব্রত মুখোপাধ্যায়। সেখানে তিনি বলেন, “অসমে সাধারণ মানুষের উপরে যা অত্যাচার করা হচ্ছে তা পৃথিবীর ইতিহাসে নজিরবিহীন। ইতিহাসে এই ধরনের অত্যাচারের কথা পড়েছি। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আগে হিটলারের বাহিনী যা করেছিল, অসমেও তাই শুরু হয়েছে। ৪০ লাখ মানুষকে একেবারে অসহায় করে দিয়েছে। এত মানুষকে বিতাড়িত করতে সবরকম ব্যবস্থা করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকার প্রত্যক্ষভাবে মদত দিচ্ছে। আমরা জনমত তৈরি করছি”।

অসমে তৃনমূলের প্রতিনিধি দলকে হেনস্থার প্রতিবাদে দিনহাটায় ধিক্কার মিছিল তৃনমূল ছাত্র পরিষদের

মনিরুল হক, দিনহাটাঃ অসমের শিলচরের বিমানবন্দরে তৃনমূলের ৮ প্রতিনিধি দলের সদস্যকে হেনাস্থ করার প্রতিবাদে সারা রাজ্যের সাথে সাথে দিনহাটাতেও ধিক্কার মিছিল করল তৃনমূল ছাত্র পরিষদ। এদিন ওই মিছিল দিনহাটা মহাবিদ্যালয়ের সামন থেকে মিছিল শুরু হয়ে দিনহাটা মহকুমা হাসপাতালের মোড় পরিক্রমা করে মহাবিদ্যালয়ের সামনে এসে ওই মিছিল শেষ হয়। এদিন ওই মিছিলে উপস্থিত ছিলেন দিনহাটা মহাবিদ্যালয়ের সাধারন সম্পাদক সৌরভ পোদ্দার, ছাত্র নেতা পিন্টু হক, রাজিব সাহা, মিজানুর হক, মজিদুল হক, পল্লব রায়, সঙ্গীতা সরকার, সুস্মিতা রায় সহ আরও অনেকে। এদিন ওই ধিক্কার মিছিলে তৃনমূল ছাত্র পরিষদের সদস্যদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো।

এদিন ওই ধিক্কার মিছিল শেষে দিনহাটা মহাবিদ্যালয়ের সাধারন সম্পাদক সৌরভ পোদ্দার বলেন, “অসমের এনআরসি দ্বিতীয় ও চূড়ান্ত খসড়া তালিকা থেকে ৪০ লাখ মানুষের নাম বাদ পড়েছে। এর প্রতিবাদে সেখানে প্রতিনিধি দল পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবার ৮ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল শিলচর বিমানবন্দরে পৌঁছনো মাত্রই তাদের হেনস্থার অভিযোগ ওঠে অসম পুলিশের বিরুদ্ধে। ফলে অপমানিত হয়ে বাধ্য হয়ে ফের রাজ্যে ফিরে আসেন তারা। তারই প্রতিবাদে সারা রাজ্যের সাথে আমরা তৃনমূল ছাত্র পরিষদের পক্ষ থেকে বিজেপিকে ধিক্কার জানিয়ে মিছিল করলাম।”

কালা দিবস পালন, অমিত শাহের কুশপুতুল পুড়ল পশ্চিম মেদিনীপুরে

পশ্চিম মেদিনীপুর, ৪ আগস্টঃ সিউড়ির সভায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে খুনের হুমকি এবং অসমের শিলচরে তৃণমূলের প্রতিনিধি দলের হেনস্থার প্রতিবাদে বিজেপির সর্ব ভারতীয় সভাপতি অমিত শাহের কুশপুতুল পোড়ানো হল পশ্চিম মেদিনীপুরে। অসমের শিলচরে তৃণমূলের প্রতিনিধি দলের হেনস্থার প্রতিবাদে এবং ওই ঘটনায় যুক্ত পুলিশ কর্মীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে শনিবার পশ্চিম মেদিনীপুরের জেলাশাসকের দপ্তরে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে তৃণমূল যুব কংগ্রেস কর্মীরা।

এদিন বিক্ষোভের আগে তৃণমূলের একটি প্রতিবাদ মিছিল মেদিনীপুর শহর পরিক্রমা করে। এই বিক্ষোভ কর্মসূচির পাশপাশি কালা দিবসও পালন করা হয় তৃণমূলের পক্ষ থেকে। এদিন বিক্ষোভ শেষে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা অমিত শাহের কুশপুতুল পোড়ানো হয়। এদিনের কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন তৃণমূল যুব কংগ্রেসের জেলা সভাপতি রমাপ্রসাদ গিরি, সুজয় হাজরা, সৌরভ বসু, গোপাল সাহা সহ অন্যান্য নেতা কর্মীরা।

রাশিয়ায় হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় মৃত ১৮

ওয়েব ডেস্ক, ৪ আগস্টঃ হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় মৃত্যু হল ১৮ জনের। ঘটনাটি ঘটেছে রাশিয়ার। রাশিয়ার পরিবহণ মন্ত্রক সূত্রে জানা গিয়েছে, এদিন ভোরবেলা এম আই-৮ নামে হেলিকপ্টারটির উত্তর সার্বিয়ার একটি জ্বালানিবাহী বিমানের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। ওই ঘটনায় ৩ পাইলট সহ ১৫ জন যাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। যদিয়ও বিমানটি অক্ষত অবস্থায় অবতরন করেছে।

জানা গিয়েছে, এদিন একটি তেল স্টেশনের কর্মীদের নিয়ে যাত্রা করেছিল হেলিকপ্টারটি৷ এর কিছুক্ষণ পরেই একটি জ্বালানিবাহী বিমানের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। ঘটনায় হেলিকপ্টারটি ভেঙে পড়ার পর তাঁতে আগুন লেগে যায়৷ হেলিকপ্টারটি রাশিয়ান ন্যাশানাল এয়ারলাইন ইউ ট্যায়ারের দ্বারা পরিচালিত হত বলে জানা গিয়েছে৷ যার প্রধান অফিস পশ্চিম সার্বিয়ার কান্তি মান্সিয়াক বিমানবন্দর৷ ওই ঘটনায় একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে৷ এবং ফেডারেল এয়ারপোর্ট এজেন্সির ভাইস ডিরেক্টর ঘটনাস্থল ঘুরে দেখার জন্য রওনা দিয়েছেন বলে জানা গিয়েছে।

খুনে অভিযুক্ত পলাতক তৃণমূল নেতা পঞ্চায়েতে জয়ী, পুলিশের জবাব চেয়ে পোষ্টার কোচবিহারে

চন্দন দাস, কোচবিহারঃ খুনের মামলায় পুলিশের খাতায় পলাতক দেখানো তৃণমূল কংগ্রেস এক নেতার নামে পোষ্টার পড়ল কোচবিহারে। আজ কোচবিহার শহরের সাগর দিঘী চত্বরে অবস্থিত জেলা শাসকের দফতরে সামনে লাগানো পর পর দুটি পোস্টারকে কেন্দ্র করে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ায়। সেখানে কোচবিহার ২ নম্বর ব্লকের টাকাগাছ অঞ্চল তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি মীর মহিরুদ্দিনের ছবি লাগিয়ে লেখা হয়েছে, “রফিকুল খুনে অন্যতম আসামি উমর আলি বর্তমানে ধৃত। কিন্তু মীর মহীরুদ্দিন এই খুনের অন্যতম আসামি। বর্তমানে পুলিশের চোখে ফেরার। কিন্তু বিগত পঞ্চায়েত নির্বাচনে তিনি বিজয়ী প্রার্থী। পুলিশ কি বলে? জনগণ জানতে চায়।”

প্রায় ৬ মাস আগে কোচবিহার ২ ব্লকের টাকাগাছ এলাকায় মাংস ব্যবসায়ী রফিকুলকে তার বাড়ির সামেন গুলি করে খুন করা হয়। এই ঘটনায় অভিযুক্ত উমর আলি ও টাকাগাছ অঞ্চল তৃনমূল কংগ্রেসের সভাপতি মীর মহীরুদ্দিন সহ বেশ কয়েকজনের নামে থানায় অভিযোগ করা হয়। ওই ঘটনায় পুলিশ উমর আলিকে ইতিমধ্যেই গ্রেপ্তার করেছে । বর্তমানে তিনি কোচবিহার জেলা সংশোধনাগারে বিচারাধীন বন্দী হিসেবে রয়েছেন। কিন্তু একই ঘটনায় অভিযুক্ত মীর মহিরুদ্দিন আজও পুলিশের খাতায় পলাতক হিসেবে রয়েছেন। এরমধ্যেই পঞ্চায়েত নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী হয়ে মীর মহিরুদ্দিন জয়ীও হয়ে যান। তাঁকে ওই এলাকায় বিভিন্ন মিছিল মিটিং ক্রতেওন দেখা যায় বলে জানা গিয়েছে। ফলে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে, এরকম জন সমক্ষে ঘুরে বেড়ানো এক অভিযুক্ত আজও কি করে পলাতক থাকেন? তবে এনিয়ে কোচবিহার পুলিশ সুপার ভোলানাথ পান্ডেকে ফোন করা হলেও তাঁকে পাওয়া যায় নি।

তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সহ সভাপতি আইনজীবী আব্দুল জলিল আহমেদ বলেন, “ আমি পোষ্টার দেওয়ার কথা শুনেছি। কিন্তু কোন ভাবেই মামলা চলাকালীন অভিযুক্তকে আসামী বলা যায় না। কারা কেন এভাবে পোষ্টারিং করল, তা নিয়ে খোঁজ নেওয়া হচ্ছে। সমস্ত দিক ক্ষতিয়ে রাজ্য নেতৃত্বকে ঘটনার কথা জানানো হবে।” সম্প্রতি কোচবিহারের কলেজের ছাত্র নেতা মাজিদ আনসারি খুনের ঘটনার পর অভিযুক্ত তৃণমূল কংগ্রেসের কোচবিহার জেলা কোর কমিটির সদস্য মুন্না খান সহ অন্যান্য অভিযুক্তদের ছবি দিয়ে সাগর দিঘী চত্বরে পোষ্টার ব্যানার লাগানো হয়। এদিন জেলা শাসকের দফতরের সামনে লাগানো ওই দুটি পোস্টারে শহর সংলগ্ন টাকাগাছ অঞ্চল তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি মহিরুদ্দিনের সাথে মুন্না খানেরও ছবি রয়েছে বলা জানা গিয়েছে। পৃথক পৃথক দুটি খুনের ঘটনায় দুই অভিযুক্ত মুন্না খান ও মীর মহিরুদ্দিনের ছবি দিয়ে জেলা শাসকের দফতরের সামনে এমন পোষ্টার পড়ায় শহর জুড়ে জোর আলোচনা শুরু হয়েছে। কিন্তু ওই পোষ্টার কে বা কারা লাগিয়েছে, তার কোন উল্লেখ নেই। রাজনৈতিক মহলের ধারণা, তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দলের জেরেই এমন পোষ্টার পড়েছে।

পূর্ণ বয়স্ক মনিটর লিজার্ড উদ্ধার করল বেলাকোবা রেঞ্জের বনকর্মীরা

শুভজিৎ পন্ডিত, আলিপুরদুয়ারঃ একটি পূর্ন বয়স্ক মনিটর লিজার্ড উদ্ধার হল জলপাইগুড়ি জেলার করতুয়া সংলগ্ন এলকায়। স্থানীয় এক সিমেন্ট ফ্যাক্টরির পাশে পূর্ন বয়স্ক মনিটর লিজার্ডটিকে প্রথমে দেখতে পাওয়া যায়। প্রাণীটি দেখতে এলাকায় উৎসাহী মানুষদের ভিড় পড়ে যায়। পরে বেলাকোবা রেঞ্জের বন কর্মীরা এসে সেটিকে উদ্ধার করে। জানা গিয়েছে, মনিটর লিজার্ডটির ওজন প্রায় ১২ কেজি। প্রানীটির শরীরে ডিম আছে বলেও মনে করা হচ্ছে।

বেলাকোবা রেঞ্জার সঞ্জয় দও জানান, পূর্ন বয়স্ক মনিটর লিজার্ডটিকে উদ্ধার করা হয়েছে। প্রাণীটির ওজন ১২ কেজির মত। পেটে ডিম আছে। শরীরে আঘাত রয়েছে। ঘটনাস্থলে প্রানীটিকে কেউ ঢিল ছুঁড়েছে বলে মনে হচ্ছে। প্রাণীটির আগামী কাল মেডিকেল পরীক্ষা নিরক্ষা করে হবে। তারপর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে বেঙ্গল সাফারি বা জঙ্গলে ছাড়া হবে।