পথ দুর্ঘটনায় আহত হল ২ বাইক আরোহী

মনিরুল হক, দিনহাটা: পথ দুর্ঘটনায় আহত হল আহত হল দুই বাইক আরোহী। ঘটনাটি ঘটেছে দিনহাটা থানার পুঁটিমারী ১ নং গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত খারিজা বালাকুড়া ৩নং গেট এলাকায়। আহত অবস্থায় স্থানীয় লোকজন ওই বাইক আরোহীকে উদ্ধার করে দিনহাটা মহকুমা হাসপাতালে পাঠান। তাদের মধ্যে এক জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গিয়েছে। ওই ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে দিনহাটা থানার পুলিশ ও দমকল কর্মীরা। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, আহত ওই দুই বাইক আরোহীর নাম মোঃ মোস্তফা রহমান(৩০), সাদ্দাম হোসেন (২৭)। তাদের দুজনের বাড়ি দিনহাটা ২ নং ব্লকের নয়ারহাট এলাকায়। জানা গেছে, ওই দুই বাইক আরোহীর মধ্যে একজনের মাথায় ও পায়ে গুরুতর আঘাত পায়। অপর একজনের মুখ থেঁতলে যায় বলে জানা গিয়েছে।

প্রতক্ষ্যদর্শীরা জানান, ওই বাইক আরোহীরা কোচবিহার থেকে দিনহাটার দিকে যাচ্ছিল। তাদের বাইকের প্রতি ঘন্টায় ৮০ কিমি ছুট ছিল বলে অভিযোগ। দিনহাটা-কোচবিহার মেইন রোডের ৩নং গেটে ওই উচু কালভার্ট দিয়ে আজ পর্যন্ত আমরা কাউকে ঘন্টায় ৮০ কিমি গতিবেগে যেতে দেখিনি। তাও আবার তাদের একজনেরও মাথায় হেলমেট ছিলেন না বলে দাবি। প্রচণ্ড গতি থাকার ফলে ওই উচু কালভার্ট উপর উঠতে গিয়ে সামনে ভাঙ্গা দেখে প্রথমে ব্রেক করে তার পর নিয়ন্ত্রন প্রায় ৫০ মিটার গড়িয়ে যায় বলে অভিযোগ। স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে দিনহাটা মহকুমা হাসপাতালে পাঠায়।

স্থানীয় নেতা আনন্দ বর্মন বলেন, “দিনহাটা-কোচবিহার মেইন রোডের রাস্তার অবস্থা খুব খারাপ। বিভিন্ন জায়গাতে এই উচু কালভার্ট দিয়েছে। তাঁর আশপাশটা খালে ভর্তি রয়েছে। যদিও ওই রাস্তার কাজ চলছে। এই মুহূর্তে ওই উচু কালভার্ট গুলির আশপাশের অবস্থা খুব খারাপ। সেগুলি পথ চলতি মানুষের সুবিধার জন্য তাড়াতাড়ি সংস্কার করলে দুর্ঘটনার হাত থেকে অনেকে রেহাই পাবে বলে জানিয়েছেন। এর পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্বপ্নের ‘সেফ ড্রাইভ সেভ লাইফ’ নিয়ে প্রচার করা হচ্ছে তবুও মানুষ সচেতন হচ্ছে না। তাই পথ আরোহীদের কাছে বিশেষ অনুরোধ আপনারা যখন এই রোড গাড়ি চালাবেন অবশ্যই হেলমেট পড়বেন। তার সাথে বাইক বা গাড়ির গতি যেন কম থাকে সেই আবেদন রাখছি।”

মথুরাপুর স্টেশনের প্ল্যাটফর্ম থেকে উদ্ধার হল তিনটি তাজা বোমা, চাঞ্চল্য

দক্ষিণ ২৪ পরগনা, ১৮ আগস্টঃ মথুরাপুর স্টেশনের প্ল্যাটফর্ম থেকে উদ্ধার হল তিনটি তাজা বোমা। বোমা উদ্ধারের ঘটনায় ট্রেন যাত্রীদের মধ্যে চাঞ্চল্য ছড়ায়। শিয়ালদহ দক্ষিণ শাখার মথুরাপুর স্টেশনে বোমা উদ্ধারের খবর পেয়ে রেলের বিশাল পুলিশ বাহিনী। রেল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বোমাগুলিকে উদ্ধার করে৷ পরে উদ্ধার হওয়া বোমগুলিকে বারুইপুরে নিয়ে গিয়ে বম্ব স্কোয়াডের সাহায্যে সেগুলি নিষ্ক্রিয় করা হয়৷ কে বা কারা, কী উদ্দেশ্যে বোমাগুলি মথুরাপুর স্টেশনে রেখেছিল তা নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে রেলপুলিশ৷

এদিন সকালে স্থানীয় এক ব্যবসায়ী মথুরাপুর এক নম্বর প্ল্যাটফর্মে দোকান খুলতে এসে দেখেন বসার সিটের নিচে একটি ব্যাগ পড়ে রয়েছে৷ ব্যাগের সরাতে গিয়ে ভিতরে দেখেন বেশ কয়েকটি তাজা বোমা রয়েছে। এ বিষয়ে তড়িঘড়ি স্টেশন চত্বরে কর্মরত সিভিক ভলান্টিয়ারদের বিষয়টি জানান তিনি৷ খবর পেয়ে রেল পুলিশকর্মীরাও চলে আসেন ঘটনাস্থলে। এদিনে বোমা উদ্ধারের খবর ছড়াতেই মথুরাপুর স্টেশনে থাকা যাত্রীদে আতঙ্ক গ্রাস করে৷

পরে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন রেলের বিশাল পুলিশ বাহিনী। সেখান থেকে ওই বোমাগুলিকে জল ভর্তি বালতির মধ্যে কিছুক্ষণ ফেলে রাখে৷ পরে সেগুলিকে উদ্ধার করে বারুইপুরে নিয়ে যায় নিষ্ক্রিয় করার জন্য। এদিন বিকেলে বোমাগুলিকে বারুইপুরের ভারতিয়া এলাকায় নিয়ে গিয়ে নিষ্ক্রিয় করেন বম্ব স্কোয়াডের কর্মীরা৷ ঘটনার তদন্তে সিসিটিভি ফুটেজ পরীক্ষা করা হচ্ছে৷

সারাদিনের সেরা খবর – ১৮ আগষ্ট ২০১৮

সারাদিনের বাছাই করা খবর
প্রতিদিন আমাদের ওয়েবসাইট ভিসিট করুন প্রতিদিনের গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলি পাবার জন্য।

মেখলিগঞ্জ ও হলদিবাড়ির মানুষ পরেশকে প্রত্যাখ্যান করবে বলে মন্তব্য নরেনের

কোচবিহার, ১৮ই আগস্টঃ মেখলিগঞ্জ ও হলদিবাড়ির মানুষ তাকে ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করবে, পরেশ অধিকারীর তৃণমূলে যোগদান প্রসঙ্গে এমনই মন্তব্য করলেন সারা ভারত ফরওয়ার্ড ব্লকের রাজ্য সম্পাদক নরেন চ্যাটার্জী। পরেশ অধিকারীর দলত্যাগের পর আজ কোচবিহারে দলীয় কার্যালয় নেতাজি ভবনে সাংবাদিক বৈঠক করে ফরওয়ার্ড ব্লকের নেতৃত্ব। এদিনের সাংবাদিক বৈঠকে সারা ভারত ফরওয়ার্ড ব্লকের রাজ্য সম্পাদক নরেন চ্যাটার্জী ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ফরওয়ার্ড ব্লক নেতা হাফিজ আলম সাইরানি, দীপক সরকার, অক্ষয় ঠাকুর ও অন্যান্যরা।

এদিন সাংবাদিক বৈঠকে রাজ্য সম্পাদক নরেন চ্যাটার্জী বলেন, “পরেশ অধিকারীর দল থেকে চলে যাওয়া এবং তৃণমূলে যোগদান করা অত্যন্ত দুঃখের এবং লজ্জার। তিনি লোভ এবং লালসার বশবর্তী হয়ে দল ত্যাগ করবেন তা প্রত্যাশা করা যায়নি। তবে তিনি দল ত্যাগ করলেও মেখলিগঞ্জ এবং হলদিবাড়ির মানুষকে তিনি কখনই পাশে পাবেন না। এই দুই এলাকার মানুষ তাকে ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করবেন।” তিনি আরও বলেন, “কোচবিহার জেলার সীমান্তবর্তী এলাকা মেখলিগঞ্জ এবং হলদিবাড়িতে রাজনীতি করা পরেশ অধিকারী তৃণমূলে যোগদান করলেও সংশ্লিষ্ট এলাকার ফরওয়ার্ড ব্লকের নেতা, কর্মী ও সমর্থক তার সাথে নেই। মেখলিগঞ্জ কিংবা হলদিবাড়ির সাধারণ মানুষকে চাকরি, পদ কিংবা ঠিকাদারির লোভ দিয়ে কেনা যায় না। এই মুহূর্তে লাল ঝাণ্ডার সাথেই আছেন এই সমস্ত এলাকার মানুষ।” সম্প্রতি রাজ্য সরকারের তরফে পরেশ অধিকারীকে চ্যাংরাবান্ধা উন্নয়ন পর্ষদের চেয়ারম্যান ঘোষণা করা হয়।

জানা গিয়েছে, এরপর ফরওয়ার্ড ব্লক দল থেকে পরেশ অধিকারীকে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয় সরকারের কোনো রকম কমিটিতে যোগ দেওয়া যাবে না। ফরওয়ার্ড ব্লক নেতা, কর্মীদের সরকারের যে কোন পদ গ্রহণ করা দল বিরোধী। এক্ষেত্রে পরেশ অধিকারী পার্টির সাথে ঐক্যমত প্রকাশ করেছিলেন। কিন্তু তারপরেও এই নিয়ে জল্পনা কল্পনা চলতে থাকে। আগামীকাল সেই জল্পনার অবসান হয়। আনুষ্ঠানিক ভাবে কলকাতায় তৃণমূলে যোগদান করেন পরেশ অধিকারী। একাধিক মন্ত্রীর উপস্থিতিতে তৃণমূলের মহা সচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের হাত থেকে তৃণমূলের পতাকা তুলে নেন তিনি। এরই পরি প্রেক্ষিতে আজ সাংবাদিক বৈঠক করে ফরওয়ার্ড ব্লকের নেতৃত্ব। তাদের দলের সঙ্গে পরেশ অধিকারীর কোন স্তরে কোন সম্পর্ক নেই বলে সাংবাদিক সম্মেলনে ঘোষণা করেন।

জাতীয় শিশু বিজ্ঞান কংগ্রেসের শিক্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালা কোচবিহারে

কোচবিহার, ১৮ আগস্টঃ জাতীয় শিশু বিজ্ঞান কংগ্রেস ২০১৮ এর শিক্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হল কোচবিহারে। আজ কোচবিহারের সদর গভর্মেন্ট হাই স্কুলে এই কর্মশালা হয়। এদিন কর্মশালার শুরুতে ভারতের প্রাক্তন প্রধান মন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ীর মৃত্যুতে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

এই কর্মশালায় ২০১৩ সালে জাতীয় স্তরে কোচবিহার জেলার শিশু বিজ্ঞানী পাতলা খাওয়া হাইস্কুলের তৎকালীন ছাত্র সঞ্জীব বর্মনকে তার উচ্চ শিক্ষার জন্য কোচবিহারের একটি সংস্থার তরফে দুই হাজার টাকার চেক দেওয়া হয়। তাকে মানপত্র ও একটি গাছের চারাও প্রদান করা হয়। আজকের এই কর্মশালায় কোচবিহার জেলার বিভিন্ন প্রান্তের ৪৯ জন শিক্ষক শিক্ষিকা উপস্থিত ছিলেন।

পথ নিরাপত্তা নিয়ে সচেতনতা শিবির পারাডুবি উচ্চ বিদ্যালয়ে

দেবাশিষ দত্ত, পারাডুবি: পথ নিরাপত্তা বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধিতে ছাত্রছাত্রীদের নিয়ে সচেতনতামূলক শিবির করলেন ঘোকসাডাঙ্গা থানার পুলিশ। শনিবার ওই সচেতনতামূলক শিবির অনুষ্ঠিত মাথাভাঙ্গা ২ নং ব্লকের পারাডুবি উচ্চ বিদ্যালয়ে। এদিন ওই শিবিরে ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে ট্রাফিক আইন সম্পর্কে ধারণা দিতে ব্লকের প্রতিটি হাই স্কুলে সচেতনতা মূলক শিবির করার উদ্যোগ নেওয়া হয়। এদিনের ওই শিবিরে উপস্থিত ছিলেন ঘোকসাডাঙ্গা থানার ওসি মহিম অধিকারী, এএসআই ক্রান্তিময় দেব, বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষিকা ও ছাত্রছাত্রীরা।

এদিন ওই শিবিরে ঘোকসাডাঙ্গা থানার ওসি মহিম অধিকারী জানান, ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে পথ নিরাপত্তা, সামাজিক কুপ্রথা দূরীকরণ বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে এই বিষয়ে স্বচ্ছ ধারণা থাকা জরুরি তাই আগামীতে অন্যান্য বিদ্যালয় গুলিতেও এধরনের শিবির করা হবে। অন্যদিকে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুব্রত চক্রবর্তী বলেন, “পুলিশের এহেন সচেতনতামূলক শিবির করার উদ্যোগকে সাধুবাদ জানান।”

কবি নিত্য মালাকারের স্মরণসভায় ও জন্মদিন পালন মাথাভাঙ্গায়

কাজল রায়, মাথাভাঙ্গাঃ প্রয়াত কবি নিত্য মালাকারের স্মরণসভা ও তাঁর জন্মদিন শনিবার পালিত হল মাথাভাঙ্গায়। তিতির পত্রিকা গোষ্ঠীর উদ্যোগে সঞ্জয় সাহার বাসভবনে ওই স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এদিন প্রয়াত কবির ওই স্মরণসভা ও জন্মদিন পালন অনুষ্ঠানে উপস্থিত কবি, সাহিত্যিক সহ সাহিত্য প্রেমী মানুষ এদিন কবিকে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

এদিন ওই স্মরণসভায় উপস্থিত ছিলেন কবি সমীর চট্টোপাধ্যায়, কবি অমর চক্রবর্তী, নাট্যব্যক্তিত্ব কল্যাণময় দাস, কবি সন্তোষ সিংহ, নির্মল দে, অনুভব সরকার, বিতান চক্রবর্তী, কিরীটি চক্রবর্তী সহ আরও অনেকে। ১৯৪৭ সালের ১৮ আগস্ট কবি নিত্য মালাকারের জন্ম। আজ তার জন্মদিন। কিন্তু এমাসের ১লা আগস্ট তিনি পরলোকগমন করেন। স্মরণসভায় তার নাতি সংকল্প সাহাকে দিয়ে কেক কেটে কবির জন্মদিন পালন করেন স্মরণসভা উপস্থিত সকলে।

এদিনের স্মরণসভায় নিত্য মালাকার জন্মদিন পালন তার স্মরণ সভাকে অন্য মাত্রা দেয়। এই স্মরণ সভায় উপস্থিত না হতে পেরে কলকাতা থেকে বিশিষ্ট বিখ্যাত কবি মৃদুল দাশগুপ্ত টেলিফোনে কবির স্মৃতিচারণ করেন। অনুষ্ঠানে উপস্থিত অথিতিরা কবির স্মতিচারনার পাশাপাশি তার কবিতাও পাঠ করেন।

সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়ের স্মরণসভা বঙ্গ সিপিএম-এর

কলকাতা, ১৮ আগস্টঃ প্রয়াত প্রাক্তন স্পিকার সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়ের স্মরণসভার আয়োজন করতে চলেছে বঙ্গ সিপিএম। সোমনাথবাবুর পুরনো কেন্দ্র যাদবপুরে ২৭ অগাস্ট আয়োজন হবে ওই স্মরণসভা। সংগঠনের তরফে জানানো হয়েছে, সোমনাথবাবুর স্মরণসভায় হাজির থাকবেন সিপিআইএম-এর শীর্ষ নেতারা। আমন্ত্রণ জানানো হবে সমস্ত দলের প্রতিনিধিদের। আমন্ত্রণ জানানো হবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও।

গত ১৩ অগাস্ট প্রয়াত হন লোকসভার প্রাক্তন স্পিকার সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়। দলের ১০ বারের সাংসদ সোমনাথবাবুকে দলীয় হুইপ অগ্রাহ্য করার অভিযোগে ২০০৮ সালে বহিষ্কার করেছিল সিপিএম। তবে সেই সিদ্ধান্ত নিয়ে দলের বঙ্গের নেতাদের সঙ্গে কেরলের নেতাদের মতবিরোধ আজও মেটেনি। বহিষ্কারের পরও সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে দলের রাজ্যের নেতাদের নিয়মিত যোগাযোগ ছিল। দলের ক্রমশ করুণ অবস্থা নিয়ে একাধিকবার প্রকাশ্যে আক্ষেপ করেছেন তিনি। সোমবার শেষ শ্রদ্ধা জানাতে সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়ের বাড়ি গেলে তাঁদের প্রতি প্রকাশ্যে ক্ষোভ প্রকাশ করেন সোমনাথবাবুর ছেলে প্রতাপ চট্টোপাধ্যায়। সে সব ভুলে কান্তিবাবু জানিয়েছেন, অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হবে সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়ের পরিবারকেও। এদিন সিপিএম নেতা কান্তি গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, “সেদিন সোমনাথবাবুর ছেলের আচরণে বহু সিপিআইএম কর্মী সমর্থক আহত হয়েছেন। দল তাঁকে বহিষ্কার করলেও রাজ্য নেতৃত্বের সঙ্গে তাঁর নিবিড় যোগাযোগ ছিল”।

এখনও ভর্তি হতে পারেনি মৌসুমি, কাকলিরা, অবস্থান বিক্ষোভ ইভনিং কলেজে

কোচবিহার, ১৮ আগস্টঃ ভর্তির দাবিতে প্রিন্সিপালের ঘরের সামনে অবস্থান বিক্ষোভে বসল ছাত্রছাত্রীরা। আজ কোচবিহারের বিটি অ্যান্ড ইভনিং কলেজে এই অবস্থান বিক্ষোভে বসে ছাত্রছাত্রীরা। মৌসুমি, রাহুল, কাকলির মত প্রায় ৯৫ জন উচ্চ মাধ্যমিক উত্তীর্ণ ছাত্রছাত্রীরা এখনও কলেজে ভর্তি হতে পারেনি বলে জানা গিয়েছে। তারা কেবলমাত্র এই কলেজেই ফর্ম ফিলাপ করেছে বলে দাবি।

কিন্তু কলেজ সূত্রে জানা গিয়েছে, সমস্ত আসনে ভর্তি প্রক্রিয়া শেষ। এই পরিস্থিতিতে ভর্তি হতে না পেরে এই কলেজে ফর্ম ফিলাপ করা ছাত্রছাত্রীরা প্রিন্সিপালের ঘরের সামনে ফের অবস্থান বিক্ষোভে বসে। ছাত্রছাত্রীদের কয়েকজন বলে, আমরা শুধুমাত্র এই কলেজেই ফর্ম ফিলাপ করেছি। কিন্তু কলেজ থেকে বলা হচ্ছে আমাদের ভর্তি নিবে না। আমরা এখন নিরুপায়। আমরা অন্য কোন কলেজে ফর্ম ফিলাপ করিনি। আমরা আনদলনে বসেছি। আমরা চাই কলেজ কর্তৃপক্ষ আমাদের ভর্তির কোন ব্যবস্থা করুক। তা না হলে আমাদের ক্ষতি হয়ে যাবে। এদিন ছাত্র ছাত্রীদের এই আন্দোলনে কলেজের ছাত্রছাত্রী সংসদের সদস্যরাও যোগ দেন।

সংসদের এক সদস্য বলেন, এই কলেজেই এই ভাই বোনেরা ফর্ম ফিলাপ করেছিল। কিন্তু কলেজের পর্যাপ্ত আসন সংখ্যা পূর্ন হয়ে গিয়েছে। কিন্তু এখনও প্রায় ৯৫ জন ভর্তি হতে পাচ্ছে না। ভর্তি না হতে পারলে তাদের ভবিষ্যৎ কি হবে? তাই তাদের ভর্তি নেওয়ার বিষয়ে কলেজ কর্তৃপক্ষের থেকে আশ্বাস না পাওয়া পর্যন্ত আমরা অনশন করব। কিন্তু প্রায় তিন ঘন্টা ধরে অবস্থান বিক্ষোভ চলতে থাকলেও ছাত্রছাত্রীদের কোন আশ্বাস কলেজ কর্তৃপক্ষ দেয়নি বলে জানা যাচ্ছে।

এই বিষয়ে কলেজের প্রিন্সিপাল বলেন, “কেউ যদি অন্য কলেজে ফর্ম ফিলাপ না করে তার দায়িত্ব কলেজের না। সেটা ছাত্র ছাত্রীদের ব্যপার। কিন্তু কারও যাতে বছর নষ্ট না হয় সেই কারনে ভিসির সাথে কথা বলেছি। ছাত্রছাত্রীদের দাবির বিষয়ে জানিয়েছি। আমার হাত পা বাঁধা। কলেজের সমস্ত আসনে ভর্তি শেষ। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ছাড়া আমি কিছু করতে পারব না।”

গৃহবধূকে খুনের অভিযোগ, শ্মশান থেকে মৃতদেহ পাঠানো হল ময়নাতদন্তে

দক্ষিণ ২৪ পরগণা, ১৮ আগস্টঃ গৃহবধূকে খুনের অভিযোগ উঠল শ্বশুরবাড়ির লোকেদের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ ২৪ পরগণার বারুইপুরে। মৃত ওই গৃহবধূর নাম রীতা চক্রবর্তী(২৫)। রীতার বাপের বাড়ির লোকের অভিযোগ, শ্বশুরবাড়ির লোকেরাই খুন করেছে রীতাকে। যদিও মৃত্যুর কারণ এখনও স্পষ্ট নয়। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে বারুইপুর থানার পুলিশ।

জানা গিয়েছে, ৬ মাস আগে উত্তর ২৪ পরগনার সন্দেশখালির গাববেড়িয়ার বাসিন্দা রীতা চক্রবর্তীর সঙ্গে বিয়ে হয় দক্ষিণ ২৪ পরগনার বারুইপুরের বিদ্যাধর গ্রামের বাসিন্দা সুমন চক্রবর্তীর। সুমনের সঙ্গে বিয়ের আগে থেকেই প্রেমের সম্পর্ক ছিল রীতার। রীতার বাপের বাড়ির লোকেরা জানিয়েছেন, সুমনের বাড়ি থেকে তাঁদের ফোন করে বলা হয় আপনাদের মেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েছে। ওই ঘটনার খবর পেয়েই ছুটে আসেন রীতার বাপের বাড়ির লোকেরা। কিন্তু মেয়ের শ্বশুরবাড়ি এসে মেয়েকে দেখতে না পেয়ে তাঁরা ছুটে যান বারুইপুর হাসপাতালে। কিন্তু সেখানে গিয়েও মেয়ের কোনও খোঁজ পাননি তাঁরা। এরপরই তাঁরা জানতে পারেন, রীতাকে দাহ করার জন্য শ্মশানে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ঘটনার কথা জানতে পেরেই রীতার বাপের বাড়ির লোকেরা বারুইপুর থানায় খবর দেন। ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ শ্মশানে গিয়ে রীতার মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়। রীতার বাপের বাড়ির লোকেদের অভিযোগ, শ্বশুরবাড়ির লোকেরাই খুন করেছে তাঁদের মেয়েকে। আর তাই তাঁদের মিথ্যে কথা বলে, লুকিয়ে দেহ দাহ করতে নিয়ে গিয়েছিল।

কেরালায় প্রবল বন্যায় আটকে পড়া রাজ্যের শ্রমিকদের ফিরিয়ে আনতে তৎপর নবান্ন

কলকাতা, ১৮ আগস্টঃ কেরালায় প্রবল বন্যায় আটকে পড়া রাজ্যের শ্রমিকদের ফিরিয়ে আনতে তৎপর নবান্ন। রাজ্যের মুখ্যসচিব ময়ল দে ইতিমধ্যেই কেরালার প্রশাসনিক আধিকারিকদের ফোন করেছেন বলে নবান্ন সূত্রে খবর। মালদা, মুর্শিদাবাদ, নদিয়া থেকে কয়েক হাজার মানুষ জীবিকার তাগিদে কেরালায় যান। প্রবল বন্যায় অনেকেই সেখানে আটকে পড়েছেন। তাঁদের নিরাপদে ফিরিয়ে আনার জন্য আটকে পড়া শ্রমিকদের পরিবারের তরফে রাজ্য সরকারের কাছে আর্জি জানানো হয়েছিল। পরিবারের সেই আর্জির পরেই রাজ্যের শ্রমিকদের ফিরিয়ে আনতে তৎপর হয়েছে নবান্ন।

প্রশাসনিক সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রয়োজনে রাজ্যের বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীকেও কেরালায় পাঠানো হতে পারে। সেজন্য প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। তৈরি থাকতে বলা হয়েছে বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীকে। আজ সকালে কেরালার বন্যাদুর্গতদের উদ্দেশ্যে একটি টুইট করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। টুইটে তিনি লেখেন, “শুধু শব্দগুলোই যথেষ্ট নয় জানি। তাও এই মুহূর্তে আমার কেরালাবাসী সকল ভাইবোনকে বলতে চাই, তোমাদের জন্য আমরাও ভাবছি। আমাদের প্রার্থনা তোমাদের প্রত্যেকের সঙ্গে আছে। যেসব পরিবার তাঁদের প্রিয়জনকে হারিয়েছে, তাঁদের সমবেদনা জানাই। কেরালায় বন্যার সঙ্গে যারা লড়াই করছে, তারা যেন এভাবেই শক্ত থাকতে পারে”।

বাকিতে মোবাইল রিচার্জ না দেওয়ায় দোকানদারকে খুন, সাজা ঘোষণা সোমবার

মাথাভাঙ্গা,১৮ আগস্ট: বাকিতে মোবাইল রিচার্জ দিতে অস্বীকার করায় দোকানদারের পেটে ছুরি ঢুকিয়ে খুন করায় এক যুবককে দোষী সাবস্ত করল আদালত। আজ মাথাভাঙ্গা আদালতে অভিযুক্ত পিঙ্কু বর্মনকে দোষী সাবস্থ করে বিচারক। আগামী সোমবার বিচারক শাস্তি ঘোষণা করবেন বলে জানিয়েছেন সরকারি আইনজীবী রবীন্দ্র নাথ রায় বসুনিয়া।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বাকিতে মোবাইল রিচার্জ করে না দেওয়ায় শীতলখুঁচির খলিসামারী এলাকায় মানাহারউল আলম(লেবু) কে পেটে ছুরি ঢুকিয়ে দেয় পিঙ্কু বর্মন। এরপর তাঁকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে তার মৃত্যু হয়। সরকারি আইনজীবী রবীন্দ্র নাথ রায় বসুনিয়া জানান, ২০১০ সালের ৩ নভেম্বর বাকিতে মোবাইল ফোনে রিচার্জ না করিয়ে দেওয়ায় মানাহারউল আলম(লেবু)কে পেটে ছুরি ঢুকিয়ে দেয় পিঙ্কু বর্মন। পরে তাঁকে মাথাভাঙ্গা হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানেই তার মৃত্যু হয়।

এরপর মৃতের পরিবার শীতলখুঁচি থানায় খুনের অভিযোগ দায়ের করে। আজ বিচারক অভিযুক্ত রিঙ্কুকে দোষী সাবস্থ করে। আগামী সোমবার বিচারক তার সাজা ঘোষণা করবেন। মৃতের ভাই আলিউল রহমান বলেন, দাদার খুনের খুনির কঠোর শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। আমরা চাই রিঙ্কুর ফাসি দিক বিচারক।