দেশের দীর্ঘতম রেল-রোড ব্রিজের উদ্বোধন করলেন মোদী

অসম, ২৫ ডিসেম্বরঃ অসমে সবথেকে বড় রেল রোড সেতুর উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এটি দেশের সবথেকে বড় রেলসেতু। যার শিলান্যাস হয়েছিল ১৯৯৭ সালে। ৫৯০০ কোটি টাকা খরচে তেরি হয়েছে এই সেতু। ১২০ বছর পর্যন্ত মেয়াদ রয়েছে সেতুটির। ৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এই রেলসেতু তৈরি হয়েছে ব্রহ্মপুত্র নদীর ওপর। ডিব্রুগড় এবং ধেমাজিকে যুক্ত করবে এই সেতু। এই সেতু তৈরির ফলে ডিব্রুগড় এবং ধেমাজির মধ্যে ১৭০ কিলোমিটার রাস্তা অতিক্রম করতে হবে না। এছাড়াও সামরিক দিক থেকেও এই সেতুর গুরুত্ব রয়েছে। এই সেতুর ওপর দিয়ে যেমন ট্যাঙ্ক যাতায়াত করতে পারবে, তেমনই যুদ্ধবিমানও নামতে পারবে বলে জানা গিয়েছে।

Top News

সেতুর মুখ্য ইঞ্জিনিয়ার মহিন্দর সিং জানিয়েছেন, বগিবিল ব্রিজ মূলত সুইডেন ও ডেনমার্কের প্রযুক্তি ব্যবহার করে তৈরি করা হয়েছে। ফলে আগামী ১২০ বছর স্বাভাবিকভাবে কাজ করবে এই সেতু। এই সেতুটি দোতলা। নিচের তলায় রয়েছে দুটি রেললাইন। উপরে তিনটি সড়ক পথ। সেতু উদ্বোধনের সঙ্গেই ওই রেলপথে তিনসুকিয়া-নাহারলাগুন ইন্টারসিটি এক্সপ্রেসের যাত্রার সূচনা করেন প্রধানমন্ত্রী। এতদিন দিল্লি থেকে ডিব্রুগড় পৌঁছতে ৩৭ ঘণ্টা সময় লাগত। এবার সেই পথই পার করতে সময় লাগবে ৩৪ ঘণ্টা। ফলে তিন ঘণ্টা সময় বেঁচে যাবে যাত্রীদের।

প্রসঙ্গত, ১৯৯৭ সালে এই সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী এইচ ডি দেবগৌড়া। সমীক্ষা, মাপজোক, ব্রিজ তৈরি সম্ভব কিনা— সেসব খতিয়ে দেখতেই পাঁচ বছর কেটে যায়। রেল সবুজ সঙ্কেত দেওয়ার পর ২০০২ সালে নির্মাণ কাজের সূচনা করেছিলেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ী।