২৭ মাস ধরে পাচ্ছেন না বেতন, অসমে আত্মঘাতী বাঙালী ইঞ্জিনিয়ার

অসম, ১ মেঃ অফিসার আবাস থেকে উদ্ধার হল এক ইঞ্জিনিয়ারের ঝুলন্ত দেহ। মৃতের নাম বিশ্বজিৎ মজুমদার। বাড়ি কলকাতা হলেও কাজের সূত্রে তিনি অসমের নগাঁওয়ে থাকতেন।

Top News

পরিবার সূত্রে খবর, রবিবার থেকে কলকাতায় থাকা তাঁর স্ত্রী এবং দিল্লি ও কেরলে পাঠরত দুই মেয়ের ফোন ধরছিলেন না বিশ্বজিৎবাবু। শনিবার থেকে যাচ্ছিলেন না অফিসেও। শেষ পর্যন্ত মঙ্গলবার স্ত্রী ফোন করেন সহকর্মীদের। বিশ্বজিৎবাবুর স্ত্রীর ফোন পেয়ে গত কাল বিকেলে সহকর্মীরা অসমের নগাঁওয়ের হিন্দুস্তান পেপার কর্পোরেশনের (এইচপিসি) টাউনশিপের অফিসার আবাসে যান। সেখানে তাঁর ঘরে ইউটিলিটি অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন ম্যানেজার বিশ্বজিৎ মজুমদারের ঝুলন্ত দেহ দেখতে পান তারা।

জানা গিয়েছে, গত ২৬-২৭ মাস ধরে বেতন পাচ্ছেন না এইচপিসির নগাঁও ও কাছাড় কলের কর্মীরা। এই নিয়ে নগাঁওয়ে তিন জন আত্মঘাতী হলেন। বিনা চিকিৎসায় মৃত্যু হয়েছে আরও ৩১ জনের। কাছাড় ও নগাঁওয়ের কারখানা মিলিয়ে আত্মহত্যা, বিনা চিকিৎসায় মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে ৫৫ হল।

এক সহকর্মী জানান, দিন কয়েক আগে শেষ বিমার সঞ্চয়ও ভেঙে ফেলে আক্ষেপ করেছিলেন, আর কোনও সঞ্চয় থাকল না। পুলিশের সন্দেহ, সেই হতাশা থেকেই চরম সিদ্ধান্ত নেন ৫৫ বছরের বিশ্বজিৎবাবু। স্ত্রী মণিদীপা মজুমদার, শ্যালক ভাস্কর মৈত্র ও মেয়েরা খবর পেয়ে আজ সকালে মরিগাঁওয়ের হাসপাতালে আসেন। গুয়াহাটিতেই তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়।

নগাঁও পেপার মিল ইউনিয়নের নেতা হেমন্ত কাকতি জানান, গত বছর রাধিকা মজুমদার ও প্রভা ডেকা নামে দুই কর্মী আত্মহত্যা করেছেন। তিন হাজার কর্মীর অনেকেই ঋণের দায়ে জর্জরিত। পরিবার অর্ধাহারে আছে। অসুস্থ হলেও চিকিৎসা-বিমার টাকা মিলছে না। সব সঞ্চয় শেষ। ছেলেমেয়ের লেখাপড়া বন্ধ হওয়ার পথে। ২০১৫ থেকে প্রভিডেন্ট ফান্ড জমা পড়েনি।