আম খান প্রাণ ভরে, হজমশক্তি বাড়বে

লাইফস্টাইল ডেস্ক, ১০ মেঃ গরমকালকে অপছন্দ করার  যদি একশটি কারন থাকে তাহলে ভালবাসার একটি কারন তা  হল আম। হ্যাঁ। অনেকেই গরমের সব খারাপলাগা গুলো ভুলে যায় শুধু আমকে ভালবেসে। সাধেই কি আর ফলের রাজা আম। আমের মিষ্টি স্বাদে ডুবেই গরমকে খুব সহজেই কাটিয়ে দেওয়া যায়।  তবে আজকাল ডায়েট কনশাস আমবাঙালি আমের ক্যালোরির কথা ভেবে কতটা আম খাবেন বা আদৌ খাবেন কি না, তা নিয়ে বেশ টানাপোড়েনে ভোগেন।  সঙ্গে যদি ডায়াবেটিক হন, তাহলে তো আর কথাই নেই।  তবে, নিশ্চিন্ত হয়ে এবার ফলের রাজাকে কাছে টেনে নিতেই পারেন।  এমনকি ডায়াবেটিস থাকলেও।

Top News

ডায়াবেটিস যাঁদের আছে, তাঁরা চিন্তায় পড়ে যান এতে থাকা মিষ্টত্ব নিয়ে।  এই মিষ্টি তাঁদের সুগার লেভেল কতটা বাড়িয়ে দিতে পারে তা নিয়ে কপালে পড়ে ভাঁজ।  চলতে থাকে মন আর মাথার সংঘাত।

তবে বিজ্ঞান বলছে, কোনও ফল খাওয়ার আগে ফলের মিষ্টি ভাবটা নিয়ে না ভেবে, তার গ্লাইসেমিক ইনডেক্স বা জিআই নিয়ে ভাবা দরকার।  কী এই জিআই? নির্দিষ্ট একটা সময়ে নির্দিষ্ট পরিমাণ কার্বোহাইড্রেট সমৃদ্ধ কোনও ফল থেকে আপনার রক্তে কতটা গ্লুকোজ় অ্যাবজ়র্বড হচ্ছে, সেই সূচক।  তাই জিআই ডায়াবেটিক রোগীদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সেক্ষেত্রে ডায়াবেটিক পেসেন্টরা আম খেতে পারবেন তবে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে নেবেন।

চলুন এবার একনজরে আমের মধ্যে থাকা  পুষ্টিগুণ গুলো জেনে নেই।

১. জানেন কি আম আপনার হজম শক্তিকেও আরও মজবুত করে তুলতে পারে। আপনার হজম ভালো হতে পারে আম খেলে।  আমে থাকা এঞ্জা়ইম খাবারের প্রোটিনকে সহজে ভেঙে দেয়, তাই গুরুপাক হলেও সহজে খাবার হজম হয়ে যায় আম খেলে।

২. আমে প্রচুর পরিমাণে ফাইবারও থাকে।  যা আপনার কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে পারে।

৩. ভিটামিন সি-এর পরিমাণও এতে থাকে যথেষ্ট, যা সহজে আপনাকে এনার্জি দেবে সারাদিন।

৪.আমে থাকা বিটা ক্যারোটিন আপনার দৃষ্টিশক্তি ভালো করে।  এই বিটা ক্যারোটিন আসলে ভিটামিন-এ র ভালো উৎস।

তাহলে আর অত না ভেবে, আমের মরশুমে নিজের মনকে কষ্ট না দিয়ে আম খেতে থাকুন ।