টক দই কি আপনি খান ? জেনে নিন টক দইয়ের উপকারিতা

মিষ্টি দই খেতেতো আমরা সবাই খুব ভলবাসি কিন্তু জানেন কি প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় টক দই রাখলে আপনার শরীরতো সুস্থ থাকবেই, পাশাপাশি আপনি সুস্থ ত্বক এবং ঝলমলে চুলের অধিকারিণী হবেন।

Top News

১) সম্প্রতি একটি তথ্য প্রকাশ পেয়েছে যে, সপ্তাহে অন্তত দু বারের বেশি সময় দই খেলে হৃদরোগ এবং স্ট্রোক প্রতিরোধ করা সম্ভব। তাই নিজেকে সুস্থ রাখতে দুপুরে টক দই খান। টক দইয়ের রায়তা খান।অথবা স্যলাদে টক দই মেশান। রান্নার বিভিন্ন পদে টক দই মেশান, এতে রান্নার স্বাদ পুষ্টিগুণ দুটোই বৃদ্ধি পাবে।

২) অনেকেই লস্যি খেতে ভালবাসেন,এই গরমে লস্যি আপনাকে শান্তি প্রদান করবে।পাকা আম, চিনি, বরফ কুচি, টক দই সামান্য লবন, পরিমান মত জল দিয়ে মিক্সিতে গুলে খেতে পারেন।দইয়ের সাথে আমের মিষ্টি গন্ধ আপনাকে চনমনে করে তুলবে।

৩) একটি তথ্যে জানা যাচ্ছে, কার্ডিওভ্যাসকুলার রোগের বড় একটা কারণ হল উচ্চ রক্তচাপ এবং হাইপার টেনশন। আমেরিকান জার্নাল অফ হাইপার টেনশনে প্রকাশিত হয়েছে যে, দই খেলে কার্ডিওভ্যাসকুলার রোগের প্রকোপ অনেক কমে যায়। সমীক্ষায় দেখা দিয়েছে, সপ্তাহে দু দিনের বেশি সময় দই খেলে হৃদরোগ বা স্ট্রোকের ঝুঁকি ২০ শতাংশ কমে গিয়েছে। তাহলে হৃদরোগ প্রতিরোধ করতে নিয়মিত দই খান।

৪) নিয়মিত টক দই খেলে আপনার ত্বক হয়ে উঠবে লাবণ্যময়ী। এর পাশাপাশি টক দইএ রয়েছে প্রাকিতিক মইসচারাইসার, কয়েক চামচ টক দইএর সাথে কয়েক ফোটা মধু মিশিয়ে মুখে মেখে ১৫ মিনিট অপেক্ষা করে ধুয়ে ফেলুন। আপনি পাবেন নরম মসৃণ টক।

৫) টক দই আপনার চুলকেও দেবে রুক্ষতা এবং খুসকির হাত থেকে মুক্তি। দই, ডিম ,আদার রস দিয়ে মিশ্রণ তৈরি করে চুলে লাগিয়ে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করে ধুয়ে শ্যাম্পু করে নিন।সপ্তাহে তিন দিন এই উপায় আপনাকে খুসকির হাত থেকে রেহাই দেবে।

৬) এছাড়া টক দই আপনার শরীরের বাড়তি মেদ ঝরাতেও সাহায্য করে। প্রতিদিন অল্প গোলমরিচ গুঁড়ো ,লবন সহযোগে টক দই খান ,তবে অবশই চিনি ছাড়া খান। আপনি থাকবেন স্লিম-ট্রিম এবং এক্টিভ।