কোন খাবারটি কত দিন পর্যন্ত ফ্রিজে রাখা স্বাস্থ্যকর, তা জেনে নিন

আমাদের দৈনন্দিন জীবনে খুবই প্রয়োজনীয় জিনিস হয়ে পড়েছে ফ্রিজ । ফ্রিজ ছাড়া আমাদের রান্নাঘরের অনেকাংশই খালি মনে হয়। এটির সুবিধাও যেমন আছে অন্যদিকে যদি আমরা ফ্রিজে খাবার সংরক্ষণের কিছু নিয়ম রয়েছে তা যদি না মেনে চলি আমাদের স্বাস্থ্যের অনেক ক্ষতি ও হতে পারে। তবে খুব বেশী দিন ফল সবজি ফ্রিজে না রাখাই ভাল। কারণ এতে ফল সবজির পুষ্টিগুন ও স্বাদ উভয়ই নষ্ট হয়ে যায়। সাথে সাথে বেড়ে যায় স্বাস্থ্যহানি হবার ঝুঁকি।

ব্যস্ত এই জীবনে আমরা সবাই ফ্রিজের ওপর নির্ভরশীল। খাবার সংরক্ষণকে অনেকখানি সহজ করে দিয়েছে এই ফ্রিজ। কিন্তু ফ্রিজের খাবার কি স্বাস্থ্যকর ? আর কোন খাবার কতদিন ফ্রিজে রাখা যাবে ? ফ্রিজে খাবার সংরক্ষণের কিছু নিয়ম রয়েছে। স্বাভাবিক তাপমাত্রায় খাবার রাখলে যেমন কিছু ব্যাকটেরিয়া জন্ম হয় তেমনি কিছু ব্যাকটেরিয়া জন্ম নেয় ফ্রিজের মধ্যে। যা খাবারের পুষ্টি গুণ নষ্ট করে দেয়। তাই খুব বেশী দিন ফ্রিজে খাবার না রাখাই উচিত। আসুন আমরা জেনে নেই, কোন কোন খাবার কতদিন পর্যন্ত ফ্রিজে রাখা উচিত —-

১) মিষ্টি এবং মিষ্টি জাতীয় খাবারঃ মিষ্টি এবং মিষ্টি জাতীয় খাবার ফ্রিজে চার থেকে পাঁচ দিন পর্যন্ত ফ্রিজে রাখা যায়। মিষ্টি প্যাকেটে না রেখে একটা প্লাষ্টিকের কনটেইনারে রেখে সংরক্ষণ করা ভাল।

২) ডিমঃ সাধারণত ডিম অনেকেই ফ্রিজের বাইরে স্বাভাবিক তাপমাত্রায় রেখে থাকেন। ফ্রিজে রাখলে ডিম অনেক দিন পর্যন্ত ভাল থাকবে। ৩ থেকে ৫ সপ্তাহ পর্যন্ত ডিম ফ্রিজে রাখা যেতে পারে।

৩) রান্না করা মাছ, মাংসঃ রান্না করা মাছ,মাংস সাধারণত ৩/৪ দিন পর্যন্ত ফ্রিজে রাখতে পারেন। এর বেশী রাখলে খাওয়ার আগে খেয়াল রাখবেন মাছ মাংসের গন্ধ ঠিক আছে কিনা। রান্না করা খাবার ফ্রিজে ঢাকনা দিয়ে রাখা ভাল। এতে এক খাবারের গন্ধ অন্য খাবারে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে না।

৪) পনিরঃ হার্ড পনির ৬ মাস পর্যন্ত। আর নরম পনির ৩/৪ সপ্তাহ। তবে ব্যবহৃত পনির ১/২ সপ্তাহের বেশী ফ্রিজে না রাখাই ভাল। পনির অব্যশই একটি বক্সে রাখা উচিত।

৫। ম্যাসড আলুঃ ম্যাসড আলু ৩ থেকে ৪ দিন পর্যন্ত রাখা যায় ফ্রিজে। এর বেশী রাখলে আলুর স্বাদ নষ্ট হয়ে যায়। ম্যাসড আলু ফ্রিজ থেকে বের করে স্বাভাবিক তাপমাত্রায় রেখে তারপর ব্যবহার করা উচিত।

৬) দুধঃ ফ্রিজের নিচের তাকে রাখুন দুধ। ১ ডিগ্রি তাপমাত্রা দুধ রাখার জন্য উপযুক্ত। তবে খাওয়ার কমপক্ষে এক ঘণ্টা আগে তা বের করে নিতে হবে। এতে দুধের গুণগত মান নষ্ট হয় না। দীর্ঘদিন সংরক্ষণের জন্য টক দই ডিপ ফ্রিজে রাখতে হবে।

৭) ফল এবং সবজি : ফ্রিজে রাখা মাত্র বিশেষ কিছু ফলের শরীর থেকে ইথাইলিন গ্যাস বের হয়, যা টাটকা সবজিকে নিমেষে নষ্ট করে দেয়। তাই কলা, জাম, নাশপাতি এবং টমেটো ফ্রিজে না রাখা ভালো। একইভাবে যেসব সবজির শরীর থেকে ইথাইলিন গ্যাস বের হয়, সেগুলোকে ফলের থেকে দূরে রাখতে হবে। ব্রকলি, গাজর, শসা, বেগুন, মটরশুঁটি, লেটুস প্রভৃতি সবজির সঙ্গে ফল রাখবেন না।

কোন খাবার কতদিন ফ্রিজে রাখা যাবে

১)হট ডগ, পিৎজা, চিকেন প্যাটিস বা বার্গার জাতীয় খাবার খোলা অবস্থায় ১ সপ্তাহ, না খোলা অবস্থায় ২ সপ্তাহ।

২) কাঁচা মাংস ফ্রিজে রাখলে ৩-৫ দিন ভালো থাকে। কাঁচা মুরগির মাংস আস্ত অবস্থায় ডিপ ফ্রিজে প্রায় ১ বছর ভালো থাকে। আর কাটা অবস্থায় ৫-৬ মাসের মধ্যে রান্না করে ফেলাই ভালো।

৩) স্যুপ সাধারণত ৩-৪ দিন ভালো থাকে। রান্না করা মুরগির মাংস, মাছ বা ডিমের কোনো পদ ৩-৪ দিন ফ্রিজে রাখা যাবে।

শরীর ঠিক রাখতে এই গাইড লাইনটা মেনে চলা একান্ত প্রয়োজন।

আমাদের খবর টেলিগ্রামে পেতে ক্লিক করুন নীচের লিঙ্কে:  http://t.me/khaboria24
হোয়াটস্যাপে আমাদের সাথে যুক্ত হতে এই লিংকে ক্লিক করুন:  http://bit.ly/2EOn96o

ফেসবুকে আমাদের সাথে যুক্ত হতে এই লিংকে ক্লিক করে লাইক করুন: https://www.facebook.com/khaboria24/