ভাবী শ্বশুর ধিরুভাই অম্বানির ফোন নাকি কেটে দিয়েছিলেন নিতা

ওয়েব ডেস্ক, ২০ এপ্রিলঃ ভাবী শ্বশুর ধিরুভাই অম্বানির ফোন নাকি কেটে  দিয়েছিলেন নিতা অম্বানি। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে শিল্পপতি মুকেশ অম্বানীর সঙ্গে তাঁর বিয়ের গল্প শুনিয়েছেন নীতা অম্বানি। সেখানে এমনি কথা বললেন নিতা।

Top News

তিনি ওই সাক্ষাৎকারে বলেছেন, “এক অনুষ্ঠানে আমাকে নাচতে দেখে মুকেশের বাবা-মায়ের পছন্দ হয়ে যায়। আমি তখন কলেজে পড়ি। আমার বাড়িতে একটা ফোন এসেছিল। ফোন তুললাম আমিই। ফোনের ওপ্রান্ত থেকে ভেসে এল, আমি ধীরুভাই অম্বানী বলছি। আমি ভাবলাম, কেউ মজা করছে বুঝি। ফোন নামিয়ে রাখলাম। ফের ফোনটা এল। ওপ্রান্ত থেকে ভেসে এল, আমি ধীরুভাই অম্বানী। রেগে বললাম, আমিও এলিজাবেথ টেলর বলছি। তারপর ফোন নামিয়ে রাখলাম। তৃতীয়বার যখন ফোন এল, ধরলেন আমার বাবা। তিনি কিছুক্ষণ কথা বলার পরে আমাকে বললেন, সত্যিই ধীরুভাই অম্বানী ফোন করেছেন। তুমি ঠিক করে কথা বল তাঁর সঙ্গে। এইভাবে অম্বানী পরিবারের সঙ্গে আমার সম্পর্কের সূত্রপাত হয়।” ওই সময়ের কথা মনে পড়লে এখনো একগাল হেসে নেন নিতা।

মুকেশ অম্বানীর সঙ্গে প্রথম পরিচয়ের দিনগুলির কথাও শুনিয়েছেন নীতা। প্রথম দিকে মুকেশ মার্সিডিজ গাড়িতে চড়ে আসতেন। নীতা একদিন বললেন, সরকারি বাসে চড়ে যেতে হবে। বাধ্য হয়ে মুকেশ নীতার সঙ্গে সরকারি বাসে ওঠেন।

নীতা জানিয়েছেন, ডবল ডেকার বেস্ট বাসে চড়ে যেতে তিনি খুব ভালোবাসতেন। বাসটি যেত জুহু বিচের পাশ দিয়ে। জানলার ধারে বসতে পেলে যেতে যেতে সমুদ্র দেখা যেত। একদম সাধারণ জীবনযাপন ছিল তার এমনি জানিয়েছেন তিনি। তিনি যেন কোনও ফেয়ারি টেলের কাহিনি শোনালেন আজ।

কলেজে পড়ার সময় ভালো ভরতনাট্যম নাচতেন নীতা অম্বানী। নাচ দেখেই তাঁকে ভাবী পুত্রবধূ হিসাবে নির্বাচিত করেছিলেন শিল্পপতি ধীরুভাই অম্বানী ও তাঁর স্ত্রী কোকিলাবেন। সেই মতোই ফোন করেছিলেন নিতার বাড়িতে ধিরুভাই অম্বানি। কিন্তু বুঝতেই পারেন নি নিতা।