মানুষের কথাও শোনা উচিত,কাশ্মীর নিয়ে মুখ খুললেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং

ওয়েব ডেস্ক, ১৩ আগস্টঃ জম্মু ও কাশ্মীর থেকে বিশেষ রাজ্যের মর্যাদা প্রত্যাহার করে নিয়েছে ভারত। ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার করা নিয়ে মুখ খুললেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং।জম্মু-কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বিলোপ ও জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখকে পৃথক কেন্দ্রীশাসিত অঞ্চল ঘোষণার প্রতিক্রিয়ায় মনমোহন সিং-এর বক্তব্য, ৩৭০ ধারা জম্মু-কাশ্মীর থেকে বিলোপ করার সিদ্ধান্ত এ দেশে অনেকেই পছন্দ করছেন না৷ জম্মু-কাশ্মীরের মানুষেরও মত শোনা উচিত সরকারের৷ একই সঙ্গে ভারত আর্থিক ও সামাজিক ক্ষেত্রে কঠিন পরিস্থিতিতে রয়েছে বলেও মন্তব্য করেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী৷

Top News

তাঁর কথায়, ‘জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত দেশে অনেকেই ভালো ভাবে নেননি৷ সব মানুষের মত শোনাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ৷ ভারত এমন একটা কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে, এই অন্ধকার সময়কে কাটাতে সব মানুষের মত শোনা উচিত৷’

জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার করে নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। পাশাপাশি রাজ্যটিকে ভেঙে দিয়ে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র। সেখানে চলছে বনধ। লাদাখের কার্গিল, দ্রাস ও সাঙ্কো এলাকায় বড় জমায়েত নিষিদ্ধ করা হয়েছে প্রশাসনের তরফে। ১৪৪ ধারা জারি করে কার্গিলের জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, কোনও জায়গায়, চারজন বা তারবেশী সংখ্যক মানুষের জমায়েত হলেই, শাস্তিমূলক পদক্ষেপ করা হবে। জেলা প্রশাসনের তরফে জারি করা বিবৃতিতে বলা হয়েছে, পরবর্তী কোনও নির্দেশিকা জারি না হওয়া পর্যন্ত এই পদক্ষেপ কার্যকরী থাকবে।

সোমবার জম্মু ও কাশ্মীরে শান্তিতেই মিটেছে, ঈদ-আল-আধা, শ্রীনগরে প্রার্থনার জন্য মসজিদে জমায়েত মানুষের ছবি এবং শহরের বিভিন্ন জায়গায় জমায়েতের ছবি শেয়ার করে জানাল সরকার। তবে শ্রীনগরে রাস্তাঘাট নিরাপত্তাকর্মীদের সজাগ দৃষ্টি থাকায় উৎসবের মেজাজ ছিল অন্যরকম। একটি বিবৃতিতে, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, কাশ্মীর উপত্যকার বিভিন্ন এলাকায় প্রার্থনার জন্য অসংখ্য মানুষের জমায়েত হয়েছিল, বারামুল্লায় ১০,০০০  এবং বান্দিপোরায় ৫,০০০ মানুষ প্রার্থনায় অংশ নেন।