মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের পদত্যাগ দাবি করে ফের বনধের ডাক ত্রিপুরায়

ওয়েব ডেস্ক, ১১ জানুয়ারিঃ নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদ ও পুলিশের গুলিতে একাধিক উপজাতি আন্দোলনকারী আহত হওয়ায় ফের বনধের ডাক ত্রিপুরায়৷ পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের পদত্যাগ দাবি করা হয়েছে৷ আগামী ১২ জানুয়ারি ওই বনধের ডাক দিয়েছে বিভিন্ন উপজাতি সংগঠন৷

Top News

বৃহস্পতিবার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব মাধববাড়িতে গুলি চালানোর ঘটনায় ম্যাজিস্ট্রেট পর্যায়ের তদন্তের নির্দেশ দেন৷ তাঁর সঙ্গেই সাংবাদিক সম্মেলন করেন আইপিএফটি’র সভাপতি তথা মন্ত্রী এন সি দেববর্মা৷ মাধববাড়ির ঘটনায় গুজব রুখতে ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ রাখার সিধান্ত নিয়েছে ত্রিপুরা সরকার।

ত্রিপুরায় বিজেপি পরিচালিত জোট সরকারের অন্যতম শরিক উপজাতি সংগঠন আইপিএফটি। রাজনৈতিক মহলের ধারনা আইপিএফটি অবিলম্বে সরকার ছেড়ে বেরিয়ে যেতে পারে৷ যদিও আইপিএফটির তরফে সরাসরি কিছু জানানো হয়নি৷ তারা ক্ষুব্ধ হলেও বনধ সমর্থন করবে কিনা তাও এখনও পরিষ্কার নয়৷

এদিকে, উপজাতি সংগঠনগুলির ডাকা ১২ জানুয়ারির বনধের জেরে ত্রিপুরার সঙ্গে দেশের সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে৷ পশ্চিম ত্রিপুরার সঙ্গে অসম ও অন্যদিকে মিজোরামের সঙ্গেও সড়ক যোগাযোগ বন্ধের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে৷

উল্লেখ্য, গত ৮ জানুয়ারি বামপন্থী ট্রেড ইউনিয়নগুলির ডাকা ৪৮ ঘণ্টার ভারত বনধ চলছিল৷ রাজ্যে বিরোধী সিপিএমের নেতৃত্বে সেই বনধ পালিত হচ্ছিল৷ আর এর পাশাপাশি সেই দিনেই নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদে বনধে সামিল হয়েছিল উত্তর পূর্বাঞ্চলের বিভিন্ন উপজাতি ছাত্র সংগঠনের যৌথ মঞ্চ নেসো৷ বনধ চলাকালীন পশ্চিম ত্রিপুরার জিরানিয়া-মাধববাড়িতে পুলিশ গুলি চালায় বলে অভিযোগ৷ ওই ঘটনায় আহত হয়েছে ৬ জন আন্দোলনকারী৷ বর্তমানে তারা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।