‘জেলা সভানেত্রীর ফোন ধরেন না’, এসপিকে জেলের ভাত খাওয়ানোর হুমকি বিজেপি নেতার

কোচবিহার, ১৩ আগস্টঃ জেলা সভানেত্রীর ফোন ধরেন না বলে অভিযোগ তুলে পুলিশ সুপারকে জেলের ভাত খাওয়ানোর হুমকি দিলেন বিজেপির রাজ্য সাধারণ সম্পাদক রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়। আজ বিজেপির কোচবিহারে পুলিশ সুপারের দফতর ঘেরাও অভিযান শেষে রাজু বাবু সাংবাদিক সাথে কথা বলার সময় অভিযোগ করে জানান, বিজেপি কর্মীদের উপর অত্যচার করা হচ্ছে। মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে। শিক্ষক নিগ্রহ করা হচ্ছে। মহিলাদের উপড়ে অত্যাচার চলছে তার প্রতিবাদে আজকের এই কর্মসূচী।

Top News

 এরপরেই রাজু বাবু বলেন, “পুলিশ সুপার আমাদের জেলা সভানেত্রীর ফোন ধরেন না। কথা বলতে চান না। এই জন্য আমরা ওনার সাথে দেখা করতে যাবো না বলে ঠিক করেছিলাম। সংবিধান মেনে নিরপেক্ষ ভাবে কাজ করলে করুন, আর যদি মুখ্যমন্ত্রী বা রবি ঘোষের কথায় তৃণমূলের জেলা সভাপতি হয়ে কাজ করেন, তাহলে আর অফিসে ঢুকতে দেব না।” এখানেই থেমে থাকেন নি উনি কার্যত হুমকির সুরে বলেন, “আমরা ২০২১ ক্ষমতায় আসছি। তখন প্রত্যেকটি বিষয়ে তদন্ত হবে। ওনাকে জেলের ভাত খাইয়ে ছেড়ে দেব।” যদিও এব্যাপারে কোচবিহার পুলিশ সুপারের কোন মন্তব্য পাওয়া যায় নি।

সম্প্রতি কোচবিহারে সক্রিয় হয়ে উঠেছে তৃণমূল কংগ্রেস। বিজেপির দখলে চলে যাওয়া বিভিন্ন এলাকা পুনরুদ্ধারে নেমেছে তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা কর্মীরা। বিজেপির অভিযোগ, বোমা বন্দুক নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের গুণ্ডা বাহিনী এলাকায় এলাকায় ঢুকে বিজেপি দলীয় কার্যালয় ভাঙচুর করছে। বিজেপি কর্মীদের এলাকা ছাড়া করছে। পুলিশ তৃণমূলের ওই গুণ্ডাদের নিয়ন্ত্রণ না করলেও বিজেপি কর্মীদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে ধরে নিয়ে যাচ্ছে। শীতলখুচি, কোচবিহার ১ নম্বর ব্লকের বিভিন্ন এলাকা, তুফানগঞ্জে তৃণমূল সন্ত্রাস করছে বলে বিজেপির অভিযোগ। তৃণমূল কংগ্রেসের কোচবিহার জেলা নেতৃত্ব অবশ্য বরাবর বিজেপির বিরুদ্ধেই সন্ত্রাস করার অভিযোগ করে আসছে। পাশাপাশি পুলিশের বিরুদ্ধেও তাঁদের অভিযোগ, তৃণমূল কংগ্রেসের সন্ত্রাসে সহযোগিতা করছে পুলিশ। বিজেপি কর্মীদের মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে।