দলীয় নেতৃত্বে ভরসা নেই, তৃনমূল ছেড়ে বিজেপির দ্বারস্থ কোচবিহারের টোটো চালকরা

চন্দন দাস, কোচবিহারঃ দলীয় নেতৃত্বের কাছ থেকে ভরসা না মেলায় এবার তৃনমূল কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপির শরণাপন্ন হলেন কোচবিহারের টোটো চালকরা। বৃহস্পতিবার কোচবিহার শহর ও লাগোয়া এলাকার প্রায় ৩০০ বেশী টোটো চালক বিজেপির জেলা কার্যালয়ে গিয়ে হাজির হন। তাঁদের আবেদনের কথা জেনে বিজেপির কোচবিহার জেলা সভাপতি নিখিল রঞ্জন দে, সহ সভাপতি ব্রজগোবিন্দ বর্মণ ও যুব মোর্চার জেলা সভাপতি শৈলেন্দ্র সাউ টোটো চালকদের সঙ্গে বৈঠক করেন।

Top News

পরে বিজেপির জেলা সভাপতি নিখিল রঞ্জন দে বলেন, “সরকারি নির্দেশের ফলে টোটো চালকদের রুটিরুজি বন্ধ হওয়ার জোগাড় হয়েছে। এভাবে বিজেপি এত মানুষের এক সঙ্গে রুটি রুজি বন্ধ করে দেওয়ার অপচেষ্টাকে কোন ভাবেই মেনে নেবে না। প্রয়োজনে সমস্ত টোটো চালকদের রেজিস্টেশন দেওয়ার দাবী জানিয়ে আন্দোলনে নামা হবে।” প্রয়োজনে টোটো চালকদের জন্য বিজেপি আদালতের দ্বারস্থ হবে বলে এদিন বিজেপি কোচবিহার জেলা সভাপতি জানিয়ে দেন।  কোচবিহার শহরের চার হাজারেরও বেশী টোটো চলাচল করে। এরমধ্যে মাত্র ৪১২ টি টোটোকে রেজিস্টেশন দেওয়ার সরকারি সিধান্ত হয়েছে। শুধু তাই নয়, একাধিক নির্দেশিকা থাকার ফলে ষ্টেট হাইওয়ে ও ন্যাশেনাল হাইওয়েতে টোটো চলাচলের উপড়ে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। ২১ মার্চ থেকে ওই নির্দেশিকা পালন করা হবে বলে ইতিমধ্যেই প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

এই অবস্থায় তৃনমূল কংগ্রেসের টোটো ইউনিয়নের পক্ষ থেকে আন্দোলনে নামা হলেও প্রশাসন তাঁদের কথা কর্ণপাত করে নি বলে অভিযোগ ওঠে। ফলে রুটি রুজি বন্ধ হওয়ার আশঙ্কায় কার্যত দিশেহারা অবস্থায় থাকা টোটো চালকদের অনেকেই এদিন বিজেপির দ্বারস্থ হতে বাধ্য হন বলে ওই চালকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।  এদিন বিজেপি নেতৃত্বের সাথে দেখা করতে আসা এক টোটো চালক বলেন, “আমরা প্রথম থেকেই তৃনমূল কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউনিয়নে ছিলাম। কিন্তু এভাবে বেশীর টোটোকে বন্ধ করে দেওয়ার যে চক্রান্ত শুরু হয়েছে। তা নিয়ে আমাদের নেতৃত্ব সমস্যা সমাধানের কোন দিশা দেখাতে পারছেন না। তাই নিরুপায় হয়ে আমরা বিজেপি নেতৃত্বের সাথে দেখা করে আন্দোলনে সহযোগিতা করার আবেদন জানিয়েছি।”