চাষের জমিতে বিশাল সুড়ঙ্গ, কোচবিহারে ফের ঐতিহাসিক নিদর্শন মেলার ইঙ্গিত

কোচবিহার, ১ ফেব্রুয়ারিঃ জমির আল কাটতে গিয়ে বেড়িয়ে এলো বিশাল আকার এক সুড়ঙ্গ। কোচবিহার ১ নম্বর ব্লকের পুঁটিমারি ফুলেশ্বরী গ্রাম পঞ্চায়েতের শীতলাবাস গ্রামে ওই সুড়ঙ্গের হদিশ পাওয়া গিয়েছে। খবর ছড়িয়ে পড়তেই আশেপাশের গ্রাম থেকে প্রচুর মানুষ সেখানে গিয়ে ভির জমাচ্ছেন।

Top News

ওই জমির মালিক পুর্মিলা বর্মণ জানিয়েছেন, গতকাল জমির আল কাটতে গিয়ে কোদালে ইট লাগে। তারপর গর্ত খুঁড়তে শুরু করলে ইটের দেওয়াল দেওয়া বিশাল সুড়ঙ্গ বেড়িয়ে আসে। সঙ্গে সঙ্গে স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েত কর্তৃপক্ষকে খবর দেওয়া হয়। তারা ইতিমধ্যেই প্রশাসনকে ওই সুড়ঙ্গ মেলার খবর জানিয়েছেন। কোচবিহার ১ নম্বর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি খোকন মিয়াঁ বলেন, “আমাদের ধারণা ওই গ্রাম থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরে দিনহাটার গোসানীমারি রাজপাট। তার সাথে এই সুড়ঙ্গের কোন সম্পর্ক রয়েছে। পুরাতত্ত্ব বিভাগকে দিয়ে খনন করে ওই সুড়ঙ্গের সঠিক ইতিহাস উদ্ধার করা হোক। এছাড়াও সুড়ঙ্গ ধরে আরও কিছু উদ্ধার হয় কিনা, সেটাও ক্ষতিয়ে দেখা হোক।”

এক সময় রাজাদের রাজত্ব চলতো কোচবিহারে। ফলে জেলার বিভিন্ন জায়গায় রাজ আমলের বিভিন্ন নিদর্শন রয়ে গিয়েছে। অনেক নিদর্শন মাটির নীচে চাপা পড়ে রয়েছে। গোসানিমারির রাজপাট তার অন্যতম উদাহরণ। এক সময় সেখানে পুরাতত্ত্ব বিভাগ খনন কাজ শুরু করেছিল। সেখান থেকে উঠে এসেছিল খেন যুগের নানা ইতিহাস। কিন্তু আচমকাই ওই খনন বন্ধ হয়ে যায়। স্থানীয় মানুষের বিশ্বাস সঠিক ভাবে খনন কাজ করা হলে আরও অনেক ঐতিহাসিক নিদর্শন সেখান থেকে উঠে আসত। এদিন উদ্ধার হওয়া সুড়ঙ্গ সেই ক্ষেন যুগের নিদর্শন বলেই মনে করা হচ্ছে।