দলের অভ্যন্তরে চূড়ান্ত বিরোধিতার মধ্যে ফেসবুক বার্তা কোচবিহারের বিজেপি প্রার্থী নিশীথের

কোচবিহার, ২২ মার্চঃ নাম ঘোষণার পরেই দলের অভ্যন্তরে চূড়ান্ত বিরোধী শুরু হয় কোচবিহার কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামাণিককে নিয়ে। দলের কোচবিহার জেলা কার্যালয়ে সভাপতি মালতি রাভাকে ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখানো হয়। আজ সকালেও দলীয় কার্যালয়ের অভ্যন্তরে বিজেপির দুই পক্ষের মধ্যে কার্যত হাতাহাতি হয়। এরমধ্যেই এদিন সকালে নিশীথ প্রামাণিক নামে একটি ফেসবুক একাউন্ট থেকে(একাউন্ট টি নিশীথ প্রামাণিকের নিজস্ব, না ফেক, টা খবরিয়া২৪ যাচাই করে নি) বার্তা দিয়ে জানানো হয়েছে, ‘‘ সংগঠন কখনো ভুল সিদ্ধান্ত নেবে না । মনে রাখবেন এই সংগঠন গোটা ভারতবর্ষ চালাচ্ছে। দলটাকে ভালোবাসুন। জয় শ্রী রাম।”

Top News

প্রসঙ্গত, শুক্রবার সন্ধ্যায় বিজেপির কেন্দ্রীয় সদর দপ্তর দিল্লিতে এক সাংবাদিক বৈঠক করে পশ্চিমবঙ্গের ৪২টি আসনের মধ্যে ২৮টি আসনের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেন বিজেপির নির্বাচনী কমিটির নেতা জেপি নাড্ডা। এদিনের এই সাংবাদিক বৈঠকে কোচবিহার লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামাণিকের নাম ঘোষণা হওয়ার পরেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন জেলা বিজেপির নেতারা থেকে শুরু করে কর্মী সমর্থকরা। দলীয় কার্যালয়ে তুমুল গণ্ডগোল ছড়িয়ে পড়ে। জেলা নেতৃত্ব বৈঠক করে নিশীথ প্রামাণিক কে নয়, দীপক বর্মণকে প্রার্থী চান বলে রেজুলেশন করেন। যা রাজ্য ও কেন্দ্রীয় নেতাদের জানানো হয়।

কোচবিহার জেলার বিজেপি সভাপতি মালতি রাভা বলেন, “টাকা পয়সা নিয়ে আমি কোন প্রার্থী দেইনি। আর প্রার্থী তালিকায় নিশীথ প্রামানিক নামও আমি পাঠান নি। কোচবিহারে এবার বিজেপির ভালো প্রভাব ছিল। আমরা চেয়েছিলাম দীপক বর্মণ প্রার্থী হোক। সে ভালো ছেলে, ও দাঁড়ালে আমরা জিতব। কিন্তু রাজ্য ও কেন্দ্রীয় নেতারা প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করে নিশীথের নাম প্রাকাশ করে। যেহেতু নিশীথ তৃনুমল ঘরনা ছেলে তাই জেলার বিজেপি কর্মী সমর্থকরা নিশীথ প্রামাণিককে মানতে নারাজ।”

এদিকে এদিনই কোচবিহারে ফিরছেন নিশীথ প্রামাণিক। প্রথমে তার বিমান যোগে বাগডোগরা হয়ে আসার কথা জানা গেলেও পরবর্তীতে ট্রেনে আসছেন বলে জানা যায়। কোচবিহারে এসেই তিনি দলীয় কার্যালয়ে গিয়ে জেলার নেতা কর্মীদের সাথে বৈঠক করবেন বলে জানা গিয়েছে। ওই বৈঠকের আগে জেলা নেতা ও কর্মী সমর্থকদের কাছে নিজের বার্তা পৌঁছাতেই এম্নজ ফেসবুক পোস্ট করা হল কিনা, তা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে আলোচনা শুরু হয়েছে।