কোচবিহারেরও বন্ধ আউটডোর পরিষেবা, লম্বা লাইন, চরম দুর্ভোগে রোগীরা

কোচবিহার, ১২ জুনঃ চিকিৎসকদের আন্দোলনের জেরে কোচবিহারেরও বন্ধ আউটডোর পরিষেবা। কোচবিহার মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বহিঃর বিভাগে লম্বা লাইন রোগীদের। একই অবস্থা কোচবিহার, আলিপুরদুয়ার, জলপাইগুড়ি, রায়গঞ্জ, মালদা বর্ধমান, নদীয়া সহ রাজ্যের প্রায় সব হাসপাতালে। কোচবিহারে আউট ডোরে টিকিট দেওয়া হলেও সেখান থেকে জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে আজ কোন ডাক্তার আসবেন না। কোচবিহারে হাসপাতালে চিকিৎসা পরিষেবা নিতে বানেশ্বর থেকে আসা এক রোগী কুমকুম দে বলেন, আমার দাতে ব্যাথা । কালকে একটু আসতে দেরি হওয়ায় বাড়ী ফিরে যাই। আজ সকালে এসে শুনি আজ কোন ডাক্তার আসবেন না। আমাদের নিয়ে ছেলে খেলা করছে। আমরা গরিব মানুষ আমাদের কষ্ট করে টাকা জোগাড় করে সরকারি হাসপাতালে এসে যদি চিকিৎসা পরিষেবা না পাই তবে কি করবো আমরা। কোচবিহারের মত একই অবস্থা জেলার অন্য হাসপাতাল গুলিতেও। ফলে চরম সমস্যায় পড়েছেন রোগীরা।

Top News

চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগে রোগীমৃত্যু এবং মৃতের পরিবারের হাতে এনআরএস মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ইন্টার্ন চিকিৎসকের হেনস্তা, গুরুতর জখম হওয়ার ঘটনা ঘিরে আপাতত উত্তপ্ত রাজ্যের চিকিৎসা ব্যবস্থা৷ তার প্রতিবাদেই বুধবার সকাল ৯টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত কর্মবিরতি পালন করছেন সমস্ত সরকারি, বেসরকারি হাসপাতালের চিকিৎসকরা৷ পুরোপুরি বন্ধ থাকছে আউটডোর পরিষেবা৷ হবে না কোনও অপারেশনও৷ কেবলমাত্র খোলা থাকছে জরুরি বিভাগ৷ এবং যার জেরে চূড়ান্ত ভোগান্তির মুখে পড়চে চলেছেন রোগী ও তাঁর পরিবারের সদস্যরা৷ সপ্তাহের প্রায় ছ’দিনই রাজ্যের বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালের আউটডোরে রোগীর চাপ থাকে৷

সোমবার রাতে এনআরএসে রোগীমৃত্যুর পর চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগ তুলে হাসপাতালের ইন্টার্ন চিকিৎসক পরিবহ মুখোপাধ্যায়কে ব্যপক মারধর করা হয়৷ অভিযোগের তিরে মৃত রোগীর পরিবারের সদস্যরা৷ ডোমজুড়ের বাসিন্দা পরিবহ ইটের আঘাতে গুরুতর জখম হয়ে ইনস্টিটিউট অফ নিউরোসায়েন্সে আপাতত চিকিৎসাধীন৷ ঘটনার পর রাজ্যের সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসকরা নিরাপদ নয়, এই অভিযোগ তুলে মঙ্গলবার দিনভর দফায় দফায় কর্মবিরতি করে রাজ্যের বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসকরা৷ বুধবার আরও বৃহত্তর আন্দোলনের ডাক দিয়ে সমস্ত আউটডোর পরিষেবাই বন্ধ করতে চলেছে জয়েন্ট প্ল্যাটফর্ম অফ ডক্টরস৷