গোষ্ঠী বাজি করেছিস, তোর জন্য কোচবিহারে হেরেছে দল, রবিকে ধমক মমতার

খবরিয়া২৪ ডেক্স, ১১ জুলাইঃ দলীয় বিধায়কদের নিয়ে বৈঠকে তৃণমূল নেত্রীর তীব্র ভর্ৎসনার মুখে পড়লেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ। আজ কোলকাতায় তৃণমূল ভবনে বিধায়কদের নিয়ে বৈঠক করেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে ভরা সভায় কোচবিহার জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি রবীন্দ্রনাথ ঘোষকে উদ্দেশ্য করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “শুধু গ্রুপবাজি করেছিস। কাজের কাজ কিচ্ছু করিসনি। তোর জন্যই হেরেছি কোচবিহারে।”

Top News

পাশাপাশি এদিন কোচবিহারে দলের পর্যবেক্ষকের ক্ষেত্রেও নতুনত্ব নিয়ে আসতে দেখা যায় তৃণমূল নেত্রীকে। তিনি এই জেলার পর্যবেক্ষক হিসেবে সুব্রত বক্সির পাশাপাশি রাজীব ব্যানার্জীকেও দায়িত্ব দেন।

কোচবিহারে তৃণমূলের গোষ্ঠী বাজি দীর্ঘদিনের। এক সময় রবি- মিহিরের গোষ্ঠী বিরোধ নিয়ে কোচবিহারের রাজনতিতে চর্চা ছিল। এরপর নিজের হাতে রাজনীতিতে তুলে আনা প্রাক্তন সাংসদ পার্থ প্রতিম রায়ের সাথেও রবীন্দ্রনাথ ঘোষের গোষ্ঠী লড়াই শুরু হয়। আর সেই কারনেই পার্থ প্রতিম রায় এবার কোচবিহার লোকসভা কেন্দ্রে প্রার্থী হতে পারেন নি নলে রাজনৈতিক মহলে চর্চা রয়েছে। লোকসভা নির্বাচনের সময় ফরওয়ার্ড ব্লক থেকে তৃণমূলে আসা পরেশ অধিকারীকে প্রার্থী করা হয়। কিন্তু ঐক্যবদ্ধ ভাবে লড়াই করতে অক্ষম হয় বলেই এই কেন্দ্রে শেষ পর্যন্ত তৃণমূল প্রার্থী জয়ী হতে পারে নি বলে দলের ভিতরেই অভিযোগ ওঠে।

দলের ওই পরাজয়ের পরেই কোচবিহারে তৃণমূলের সাংগঠনিক ক্ষেত্রেও রদ বদল করা হয়। রবীন্দ্রনাথ ঘোষকে জেলা সভাপতির পদ থেকে সরিয়ে বিনয় কৃষ্ণ বর্মণ জেলা সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হয়। কার্যকারী সভাপতি করা হয় পার্থ প্রতিম রায়কে।

এরপরে কোচবিহারে ২১ জুলাইয়ের সভার প্রস্তুতির জন্য কর্মী সভা করতে প্রপ্র দুবার কোচবিহারে আসেন দলের রাজ্য পর্যবেক্ষক সুব্রত বক্সি। ওই সময় জেলায় পরাজয়ের কারন নিয়ে কোন রিপোর্ট মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে দিতে পারেন বলে অনেক আশঙ্কা প্রকাশ করছেন। আর সেই রিপোর্টের পরিপেক্ষিতেই বিধায়কদের নিয়ে এদিনের সভা রবীন্দ্রনাথ ঘোষকে দলনেত্রীর ওই ধমক বলে মনে করা হচ্ছে।