পড়ুয়ারাদের তুলির টানে সেজে উঠছে রাজার শহর কোচবিহার

কোচবিহার, ১৩ অগাস্টঃ ঐতিহ্যের কোচবিহার শহরকে আরও সুন্দর করে গড়ে তোলার লক্ষে এবার কচি হাতের ছবি ও সচেতনতার বার্তা, নাগরিকদের কাছে পৌঁছে দিতে এক অভিনব উদ্যোগ নেওয়া হল। মঙ্গলবার রং তুলির ক্যানভাসে এক অন্য মাত্রা যোগ করল এই কর্মসূচি।

Top News

 শহরের প্রান কেন্দ্র সাগর দিঘী।এই দিঘী বহন করে চলেছে অনেক ইতিহাস। দীঘিকে ঘিরে গড়ে ওঠেছে কোচবিহারের অফিস পাড়া। আর সেই কারনে বহু মানুষের আনাগোনা এই চত্বরে। শুধু কি তাই ! সুস্বাস্থ্যের জন্য এই চত্বরে হাটা চলা করে বহু মানুষ,  প্রেমপ্রীতি ভালবাসা মহব্বতের এক অন্য ক্ষেত্র এই সাগর দিঘী। তাই এই পরিবেশকে আরও স্নিগ্ধ করে তোলার জন্য প্রশাসনিক এই প্রয়াসকে সাধুবাদ জানিয়েছে সাধারন মানুষ।

‘সিটি অফ বিউটি’ নামে খ্যাত এই কোচবিহার শহর।কথা সাহিত্যিক অমিয়ভূষণ মজুমদারের ‘রাজনগর’ মানুষের চাপে তাপে আজ অনেকটা হতশ্রী অবস্থা তৈরি হলেও এই শহর গোটা ভারতের কাছে উল্লেখযোগ্য। মহারাজাদের নগররায়ণ পরিকল্পনা অন্য গরিমায় পৌঁছে দিয়েছিল এই শহরকে। তাই রাজ্যের মধ্যে এই শহরের গুরুত্ব রয়েছে যথেষ্ট। শহরের দূষণ রোধ,পরিচ্ছন্নতা, সবুজায়নের লক্ষে এক অন্য আঙ্গিকে সচেতনতার বার্তা দিল কোচবিহার সদর মহকুমা প্রশাসন। তাদের এই কর্মসূচিতে সামিল হল স্কুল পড়ুয়ারাও। শহরের পাঁচটি স্কুল এই কর্মসূচিতে অংশ নেয়।

সেই স্কুল গুলি হল ইন্দিরা দেবী বালিকা বিদ্যালয়, কোচবিহার উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়, সুনীতি একাডেমী, সদর গভঃ হাই স্কুল ও রামভোলা উচ্চ বিদ্যালয়। স্কুল পড়ুয়ারা তাদের ভাবনাকে চিত্রকলা ও চিত্রলিখনের মধ্য তুলে ধরে সাধারন নাগরিকদের কাছে।  এদিনের এই কর্মসূচি প্রসঙ্গে কোচবিহার সদর মহকুমা শাসক সঞ্জয় পাল বলেন, কোচবিহারের পরিবেশকে ও হেরিটেজকে আরও সুন্দর করে নাগরিকদের মধ্যে ফুটিয়ে তুলতে আমাদের এই উদ্যোগ।

অন্যদিকে এই  উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে কোচবিহার উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা নবনিতা শিকদার বলেন, ‘সেভ গ্রিন স্টে ক্লিন’ প্রকল্পকে সামনে রেখে পড়ুয়ারাও রং তুলির ক্যানভাস নিয়ে পথে নেমেছে। আমরা তাদের সহযোগিতা করছি মাত্র।