নিজের দলকেই ভোট দিতে বারণ সিতাইয়ের তৃনমূল বিধায়কের, ভাইরাল ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায়

কোচবিহার, ২৬ মার্চঃ বক্তব্য রাখতে গিয়ে খোদ নিজের দলকে ভোট না দেওয়ার আবেদন করা তৃনমূল কংগ্রেসের সিতাই কেন্দ্রের বিধায়ক জগদীশ বসুনিয়ার একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ার ঘটনায় রাজনৈতিক মহলে চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে ( যদিও এই ভিডিওর সত্যতা খবরিয়া ২৪ যাচাই করেনি)। বিভিন্ন হোয়াসট অ্যাপ গ্রুপে ছড়ানো ওই ভিডিওতে সিতাইয়ের তৃনমূল বিধায়ককে বক্তব্য রাখতে দেখা যাচ্ছে।

Top News

সেখানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি বলছেন, “ তাকে মমতা ব্যানার্জি নির্বাচিত করেছে। কোচবিহারের মানুষের উন্নয়নের জন্যে, গিতালদহের উন্নয়নের জন্যে তাকে ঠিক করেছে। আপনাদের সেই কথাটা ভাবতে হবে। তাই আমি অনুরোধ করবো সমস্ত ভেদাভেদ ভুলে সকল তৃনমূল কংগ্রেসের সৈনিক যুব, মাদার, ছাত্র, কৃষাণ, ক্ষেত মজুর সবাই মিলে হাতে হাত ধরে কাধে কাধ মিলিয়ে ১১ এপ্রিল বেঁচে থাকার লড়াই, শান্তির লড়াই, উন্নয়নের লড়াইকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সবাই মিলে জোড়া ফুল প্রতীকে ভোট দেবেন। এই দুইটা অঞ্চল থেকে কমসে কম পাঁচ হাজার এক একটা অঞ্চল থেকে লিড দিয়ে যাতে দশ হাজার ভোট লিড দিতে পারে সেই ব্যবস্থা করতে হবে। একটা বুথেও যাতে তৃনমূল কংগ্রেস কোনও ভোট না পায়। তার ব্যবস্থা আমাদের করতে হবে। এই কথা বলে সবাইকে আন্তরিক অভিনন্দন জানিয়ে আমার বক্তব্য শেষ করছি’’।

যদিও এই বিষয়ে জগদীশ বাবু বলেন, “এটা কী আমি কখনও বলতে পারি। কোনও ভাবেই এরকম বক্তব্য রাখা আমার পক্ষে সম্ভব নয়। যদি এরকম কিছু ঘটে থাকে তবে যান্ত্রিক কারসাজি করে বিজেপি এসব করেছে। এতে ভোটের কোনও প্রভাব পড়বে না। কারন গোটা দেশ জুড়ে বিজেপি এধরণের কারসাজি করছে মানুষ সেটা জানে”। যদিও ভিডিওটি ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের প্রচারের কিনা, তা স্পষ্ট করে জানা যায়নি।

লোকসভার প্রথম দফার নির্বাচন হতে চলেছে এ রাজ্যের কোচবিহার ও আলিপুরদুয়ার আসনে। ১১ এপ্রিল এই দুই কেন্দ্রে ভোট হবে। ইতিমধ্যেই মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়ার কাজ শেষ হয়েছে। এরই মধ্যে এমন ভিডিও ভাইরাল হওয়ায় তৃনমূল শিবিরের অনেকেই অস্বস্তিতে পড়েছেন। তবে তাঁদের দাবি, বিষয়টি যদি সত্যিও হয়ে থাকে, তাহলে পুরোটাই মুখ ফসকে বলা। আর এই ভিডিওকে হাতিয়ার করে বিজেপি নোংরা রাজনীতি খেলা খেলছে। এতে নির্বাচনে কোন প্রভাব পরবে না।