কাল নাকি দিল্লীতে বৈঠক, লোকসভায় কোচবিহার কেন্দ্রে বিজেপির প্রার্থী কি নিশীথ?

কোচবিহার, ২৭ ফেব্রুয়ারিঃ এবার লোকসভা নির্বাচনে কোচবিহার কেন্দ্র থেকে বহিষ্কৃত তৃণমূল যুব নেতা নিশীথ প্রামাণিক বিজেপির প্রার্থী হতে পারেন বলে খবর ছড়িয়ে পড়ায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। প্রাথমিক ভাবে অনেকেই দাবী করছেন, ইতিমধ্যেই নিশীথ প্রামাণিক সহ বিজেপিতে যোগ দেওয়ার সম্ভাবনা থাকা বেশ কয়েকজন দিল্লীর উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছেন। আগামী কাল সেখানে একটি বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। ওই বৈঠকের পর কবে কোথায় আনুষ্ঠানিক ভাবে তারা বিজেপিতে যোগ দেবেন, তা নিয়ে সিধান্ত হতে পারে বলে খবর ছড়িয়েছে।

Top News

তবে এনিয়ে কোচবিহারে বিজেপির কোন নেতৃত্ব এখনই প্রকাশ্যে মুখ খুলতে নারাজ। দিনহাটার এক বিজেপি নেতা জানিয়েছেন, এর আগে দু-দফায় আলোচনা হয়েছে। আগামী কাল দিল্লীতে একটি বৈঠক রয়েছে। নিশীথ প্রামাণিক তো বটেই গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে নির্দল থেকে দাঁড়িয়ে জয়ী হয়ে আসা প্রায় ৩০০ জন পঞ্চায়েত, পঞ্চায়েত সমিতি ও জেলা পরিষদ সদস্য বিজেপিতে যোগ দিতে চেয়েছেন। অন্যদিকে তৃণমূল কংগ্রেসের কোচবিহার ১ নম্বর ব্লক সভাপতি খোকন মিয়াঁ বলেন, “তৃণমূল কংগ্রেস যাঁদের দল থেকে বের করে দেয়, তারা রাজনৈতিক ও সাংগঠনিক ভাবে গুরুত্বহীন হয়ে যায়। এর আগে তার অনেক নজির রয়েছে। নিশীথ প্রামাণিককে দল থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে। তাঁকে নিয়ে কে কি করবে, আমাদের দেখার দরকার নেই। তবে বিজেপি ওকে প্রার্থী করলে লোকসভা নির্বাচনে আমাদের লড়াই আরও সহজ হবে।” তবে এনিয়ে নিশীথ প্রামানিকের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তাঁকে ফোনে পাওয়া যায় নি। তাঁর অনুগামী অনেকেই নিশীথ প্রামাণিক বিজেপিতে যোগ দিতে দিল্লীর উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছেন কিনা? তা জানেন না বলে প্রসঙ্গ এড়িয়ে গিয়েছেন।

গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে কোচবিহারের রাজনীতিতে শিরোনামে উঠে আসেন নিশীথ প্রামাণিক। তৃণমূল যুব কংগ্রেসের কোচবিহার জেলা সাধারণ সম্পাদকের পদে থাকা নিশীথ প্রামাণিক নিজেকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সৈনিক বলেই প্রচার করতেন। পঞ্চায়েত নির্বাচনে তিনি তৃণমূল যুব কংগ্রেসের পতাকা নিয়ে পঞ্চায়েত, পঞ্চায়েত সমিতি ও জেলা পরিষদের বেশ কিছু আসনে তাঁর অনুগামীদের প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নামান। বেশ কিছু ক্ষেত্রে তৃণমূল প্রার্থীদের পরাস্ত করতে সক্ষম হন তিনি। দিনহাটা ১ নম্বর ব্লকের বেশীর ভাগ গ্রাম পঞ্চায়েত, পঞ্চায়েত সমিতি ও ১ টি জেলা পরিষদের আসন থেকে নির্দল প্রার্থীদের জিতিয়ে আনেন। নির্বাচনের পরেও তৃণমূলের মাদার ও যুব গোষ্ঠীর লড়াই চলতে থাকে। মাদারের হাত থেকে একের পর এক এলাকা দখল করতে থাকেন তিনি। রাজনৈতিক আধিপত্য বিস্তার দেখে মাদারের অনেক নেতা তাঁর সাথে সমঝোতাও করে নেন।  এতে তৃণমূলের আভ্যন্তরীণ পরিস্থিতি ঘোরাল হতেই দল থেকে বহিস্কার করা হয় নিশীথ প্রামাণিককে।

তৃণমূল কংগ্রেস আবার দলে ফিরিয়ে নিতে পারে বলে আশা করে বেশ কিছু ধরে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড থেকে পুরোপুরি নিরব থাকেন তিনি। কিন্তু লোকসভা নির্বাচন এসে গেলেও তাঁকে দলে ফিরিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে তৃণমূল কোন ভূমিকা নেয় নি। আর সেই কারণেই তিনি বিজেপি নেতৃত্বের সাথে যোগাযোগ করে থাকতে পারেন বলে রাজনৈতিক মহলের আশঙ্কা। অনেকেই মনে করছেন, নিশীথ প্রামাণিক তৃনমূলে থাকার সময়ও আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে দলের প্রার্থী হওয়ার ইচ্ছা নিয়ে অনুগামীদের সাথে আলোচনা করেছেন। কিন্তু বর্তমান অবস্থায় সেটা সম্ভব নয় বুঝেই বিজেপির সাথে আলোচনার সময় নিশীথ প্রামাণিক প্রার্থী হওয়ার প্রসঙ্গ বেশী করে গুরুত্ব দিয়ে আলোচনা করতে পারেন বলে মনে করা হচ্ছে। আর যদি তিনি সত্যি সত্যি বিজেপিতে যোগ দেন তাহলে তাঁর কোচবিহার কেন্দ্রে প্রার্থী হওয়া নিশ্চিত বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।