বিয়ে বাড়ি থেকে ফেরার পথে বিজেপি নেতাকে মারধর করার অভিযোগ দুষ্কৃতীরদের বিরুদ্ধে

সত্যেন মহন্ত, রায়গঞ্জঃ বিয়ে বাড়ি থেকে ফেরার পথে বিজেপি নেতাকে মারধর করার অভিযোগ উঠল এক দল দুষ্কৃতীরদের বিরুদ্ধে। আক্রান্ত ওই বিজেপি নেতার নাম অপূর্ব চক্রবর্তী। ঘটনাটি ঘটেছে ইসলামপুর থানার গুঞ্জরিয়া এলাকায়। রক্তাক্ত অবস্থায় স্থানীয়রা ওই বিজেপি নেতাকে ইসলামপুর হাসপাতালে নিয়ে যায়। তবে তার অবস্থা গুরুতর থাকায় রাতেই তাকে স্থানান্তরিত করা হয় শিলিগুড়িতে। ইসলামপুর জেলা বিজেপির পক্ষ থেকে ইসলামপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে ইসলামপুর থানার পুলিশ।

Top News

জানা গেছে, বুধবার রাতে ইসলামপুর থানার গুঞ্জরিয়া এলাকায় এক আত্মীয়ের বিয়ের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গিয়েছিলেন ইসলামপুর শহরের বাসিন্দা বিজেপি নেতা অপূর্ব চক্রবর্তী। রাত দশটা নাগাদ বিয়ে বাড়ি তিনি বাড়ি ফেরার জন্য রওনা হন তিনি। অভিযোগ, পথে তৃনমূল কংগ্রেস আশ্রিত দুস্কৃতীরা আচমকা আক্রমন করে অপূর্ববাবুকে। দশ বারো জনের একটি দল অপূর্ব চক্রবর্তীকে এলোপাথাড়ি মারধর শুরু করে। স্থানীয় বাসিন্দারা ছুটে আসলে পালিয়ে যায় দুস্কৃতীরা। স্থানীয় বাসিন্দারা গুরুতর জখম অপূর্ব চক্রবর্তীকে ইসলামপুর মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখান থেকে তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় শিলিগুড়ি নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

এই ঘটনা নিয়ে বিজেপির উত্তর দিনাজপুর জেলা সাধারন সম্পাদক সুরজিৎ সেন বলেন, ইসলামপুর শহর বিজেপির প্রাক্তন সভাপতি এবং মহকুমা আদালতের ক্লার্ক অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য অপূর্ব চক্রবর্তীর উপর হামলা করেছে তৃনমূল আশ্রিত দুস্কৃতীরা। ইসলামপুরের গুঞ্জরিয়ায় আমাদের দলের সক্রিয় কর্মী অপূর্ব চক্রবর্তীর উপর তৃনমূলী হামলার তীব্র নিন্দা করছি। পাশাপাশি দুস্কৃতীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তারের দাবি করছেন বিজেপি নেতা সুরজিৎ সেন।

যদিও ইসলামপুর তৃনমূল কংগ্রেস নেতা জাকির হোসেন বলেন, অপূর্ববাবুর উপর হামলার ঘটনা তাদের দল কোনওভাবেই জড়িত নয়। ইসলামপুরে বিজেপির কোনও প্রভাবই নেই। এখানে বিজেপি দিশেহারা হয়ে এইসব অপপ্রচার করছে। এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে ইসলামপুরের গুঞ্জরিয়া এলাকায়। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।