বাংলার মুখ্যমন্ত্রী একজন খুনি, মমতার বিরুদ্ধে এফআইআর হবে: বিস্ফোরক মুকুল

ওয়েব ডেস্ক, ১১ জুনঃ মমতা একজন খুনি। বাংলার মুখ্যমন্ত্রী একজন খুনি মুখ্যমন্ত্রী, সন্দেশখালি ইস্যুতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে এমনি বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়। তিনি বলেন, ‘ সুপরিকল্পিত ভাবে সন্দেশখালিতে বিজেপি কর্মীদের খুন করিয়েছে মমতা। মমতার বিরুদ্ধে এফআইআর করা হবে। মমতার উস্কানিতেই এই ঘটনা ঘটেছে, লোকসভা নিরবাচিনের আগে থেকেই মমতার উস্কানি মুলক মন্তব্যের জন্যই তাঁর দলের কর্মীরা এই রাজ্যে সন্ত্রাস চালাচ্ছে।’

Top News

এদিন সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, “আমাদের বিজেপি কর্মীদেরকে  টার্গেট করে খুন করা হয়েছে৷ এখনও আমাদের বেশ কিছু কর্মী নিখোঁজ রয়েছে। শেখ শাহজাহানের নেতৃত্বে পরিকল্পিতভাবে হামলা চালায় তৃনমূলের গুণ্ডারা৷ আমরা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে এফআইআর করব। তিনি বলেন ‘এই মুখ্যমন্ত্রী খুনি মুখ্যমন্ত্রী। সমস্ত রিপোর্ট স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ও কেন্দ্র পার্টিতে লিখিতভাবে জানাবো। এইভাবে আর চলতে পারে না। এর একটা সমাধান করতে হবে। তৃনমূলের গুণ্ডারাজ আর চলতে দেব না। আমরা বাংলাকে শান্ত করার লক্ষ্যে কাজ করবো। ভারতীয় জনতা পার্টির নীতি আদর্শে বাংলার ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করবো।’

এদিন বিজেপি নেতা দাবি করেন, ‘রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বলছে বিজেপি এই রাজ্যে সরকার ভাঙ্গার চেষ্টা করছে৷ তাই আমরা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বলবো একবার এসে দেখে যান সন্দেশখালির কি পরিস্থিতি। আমরা কখনই সরকার ভাঙার পক্ষে নই। তবে অবিলম্বে যেসব দুষ্কৃতী হামলা চালিয়েছে তাদেরকে গ্রেফতার করার দাবি জানাচ্ছি মুখ্যমন্ত্রীর কাছে।” এমনকি পুলিশ কোনও সহযোগিতা করছে না বলে এদিন অভিযোগ তোলেন মুকুলবাবু।

গত শনিবার সন্দেশখালির ন্যাজাটে ফ্ল্যাগ খোলাকে কেন্দ্র করে বিবাদের সৃষ্টি হয়, ঐ ঘটনা পরে সংঘর্ষের আকার ধারন করে ৷ ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠে  পরিস্থিতি৷ সংঘর্ষে নিহত হন তৃণমূল কর্মী কায়ুম মোল্লা। উদ্ধার হয় প্রদীপ মণ্ডল ও সুকান্ত মণ্ডলের দেহ৷ যাদের নিজেদের কর্মী বলে দাবি করে গেরুয়া শিবির৷ উভয়পক্ষেরই দাবি তাদের বহু কর্মী সংঘর্ষের জেরে নিখোঁজ৷