জামালপুরে তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষের জেরে আক্রান্ত পুলিশ, গ্রেফতার বিজেপির ১০ কর্মী

ওয়েব ডেস্ক, ১ মেঃ তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে বিজেপি কর্মীর হাতে আক্রান্ত হয় পুলিশ কর্মীরা। জামালপুর থানার জৌগ্রামে তেলনুড়ি অবৈতনিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোট মিটে যাওয়ার পর বিজেপি-তৃণমূলের সংঘর্ষের ঘটনায় ঘটনাস্থল থেকে ১০ জন বিজেপি কর্মী সমর্থককে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। ধৃত ওই ১০ জন বিজেপি কর্মী সমর্থকের বাড়ি নুড়ি, বেনেপুকুর ও তেলে এলাকায়।

Top News

মঙ্গলবার ধৃতদের বর্ধমান আদালতে পেশ করা হয়। তদন্তের প্রয়োজনে কিঙ্কর মণ্ডল, সত্যেন্দ্রনাথ বিশ্বাস, বসির মোল্লা ও শুভঙ্কর গোমস্তাকে পাঁচ দিন হেফাজতে চেয়ে আদালতে আবেদন জানায় পুলিশ। ধৃতদের দু’দিন পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেন ভারপ্রাপ্ত সিজেএম সোমনাথ দাস। বাকিদের বিচার বিভাগীয় হেফাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন বিচারক।

পুলিশ জানিয়েছে,সোমবার তেলনুড়ি অবৈতনিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোট মিটে যাওয়ার পর গন্ডগোল বাধে। বিজেপির অভিযোগ, তৃণমূলের লোকজন ভোট লুটের চেষ্টা করে। ভোট শেষ হওয়ার পর এনিয়ে স্কুলের গেটের সামনে বিক্ষোভ দেখায় বিজেপি। ইভিএম নিয়ে যেতে বাধা দেয় তারা। সেই সময় বিজেপির লোকজন তৃণমূলের কর্মী-সমর্থকদের ব্যাপক মারধর করে বলে অভিযোগ। খবর পেয়ে বিশাল পুলিশ বাহিনী ঘটনাস্থলে যায়। পুলিশ ইভিএম ও ভোটকর্মীদের ছেড়ে দেওয়ার জন্য বলে। তা অমান্য করে বিক্ষোভ চালিয়ে যায় বিজেপির লোকজন।

আচমকা বিজেপির লোকজন পুলিশের উপর হামলা চালায়। পুলিশকে লক্ষ করে ইট-পাটকেল ছোড়া হয়। তাতে জামালপুর থানার ওসি পুষ্পেন্দু জানা-সহ কয়েক জন পুলিশকর্মী জখম হন। পুলিশের পাঁচটি গাড়িতে ভাঙচুর চালানো হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ায় পুলিশ টিয়ার গ্যাসের দু’টি সেল ফাটায়। তাতে বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। এর পরে লাঠিচার্জ করে পুলিশ পরিস্থিতি আয়ত্বে আনে।