ঢালাই রাস্তা নিয়ে রেজিনগরে ধুন্ধুমার, হাঁসুয়ার কোপে এক পঞ্চায়েত সদস্যকে

মুর্শিদাবাদ, ১১ জানুয়ারিঃ শাসক-বিরোধী বাদানুবাদে গলায় হাঁসুয়ার কোপ এক পঞ্চায়েত সদস্যকে। আহত ওই পঞ্চায়েত সদস্যের নাম মনিরুল ইসলাম। শুক্রবার সকালে ঘটনাটি ঘটেছে মুর্শিদাবাদের রেজিনগরের ওমরপুর গ্রামে। স্থানীয়রা ওই পঞ্চায়েত সদস্যকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ভর্তি করা হয় বেলডাঙা প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে। তার অবস্থার অবনতি হওয়ায় মনিরুল বাবুকে স্থানান্তরিত করা হয় মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজে। সেখানেই এখন তার চিকিৎসা চলছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

Top News

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রেজিনগরের ওমরপুর গ্রামে নতুন ঢালাই রাস্তা তৈরির কাজ চলছে। যার ফলে সেইখান দিয়ে ভারী যানচলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। কিন্তু বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় একটি ট্রাক্ট্রর ওই রাস্তা দিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। ঘটনাটি নজরে আসে ওমরপুরের তৃণমূলের স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য মনিরুল ইসলামের। তিনি তখন নির্মীয়মাণ ওই রাস্তা দিয়ে ট্রাক্টর না নিয়ে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করেন। সেই সময় এলাকার কংগ্রেস নেতৃত্বরা ও তৃণমূলের নেতা কর্মীরাও উপস্থিত হন সেখানে।

ফলে ট্রাক্টরকে কেন্দ্র করে জটলা বেধে যায় দুই পক্ষের। অনেকক্ষণ ধরে বচসা চলার পর রণে ভঙ্গ দেয় দুই পক্ষ। কিন্তু শুক্রবার সকাল বেলায় কাজে যাওয়ার সময় নৃশংসবভাবে হামলা চালানো হয় তৃণমূলের পঞ্চায়েত সদস্য মনিরুল ইসলামের উপর। হাঁসুয়া দিয়ে কোপ মারা হয় গলায়। লাঠি দিয়েও আঘাত করা হয়। এরপর আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে ভর্তি করা হয় বেলডাঙা প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে। কিন্তু অবস্থার অবনতি হওয়ায় মনিরুল বাবুকে স্থানান্তরিত করা হয় মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজে। সেখানেই এখন তার চিকিৎসা চলছে।

মনিরুল ইসলামের আত্মীয়দের অভিযোগ, হাকিম সেখ, ফড়িং সেখ, নুর আলম সেখ, মৃদুল সেখ ও মিঠু সেখ নামের পাঁচ কংগ্রেস কর্মী মনিরুল ইসলামকে মারধর করেছে। যদিও কংগেস এটাকে পুরনো শত্রুতার জের বলে এই অভিযোগ আস্বীকার করেছে। এই ঘটনায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে অভযোগ দায়ের করা হয়েছে স্থানীয় রেজিনগর থানায়।