বাংলায় পাচনের দাওয়াইতেই  ৪২-এ ৪২ হবেঃ অনুব্রত

বারাসত, ২৮ ফেব্রুয়ারিঃ ফের পাচন দাওয়াইয়ের কথা শোনা গেল অনুব্রত মণ্ডলের মুখে। দাপটের সঙ্গে লোকসভা ভোট সম্পন্ন করতে এবং অবশ্যই জয় হাসিল করতে এই দাওয়াই যে কতটা উপযোগী তা কর্মীদের বুঝিয়ে দিয়েছেন তিনি। ভারত জয়ে ৪২-এ ৪২-এর নির্দেশ দিয়েছেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্ধ্যোপাধ্যায়৷ সেই নির্দেশ অক্ষরে অক্ষরে বাস্তবায়িত হবে৷ সৌজন্যে অবশ্যই পাচন দাওয়াই৷ জানিয়ে দিলেন অনুব্রত মণ্ডল৷

Top News

বৃহস্পতিবার বারাসাত বিশেষ আদালতে একটি মামলার জন্য এসেছিলেন বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মন্ডল৷ সেখানেই লাল মাটির দেশের কেষ্ট দাবি করেন, আসন্ন লোকসভায় বিজেপি ১০০ টির বেশি আসন পাবে না৷ মোদীকে মুখ্যমন্ত্রীর দেওয়া ম্যাডিবাবুর সুরে তাল মিলিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে ‘পাগল’ বলেও আখ্যা দেন তিনি৷

তবে বাংলায় বিরোধী জোটের ঐক্য নয়, এক্ষেত্রে কোর কমিটির বৈঠক থেকে দলীয় কর্মীদের উদ্দেশ্যে তৃণমূল নেত্রীর ঘোষণা, সিপিএম-কংগ্রেস ও বিজেপি ভাই ভাই৷ তারা কি করছে ভেবে লাভ নেই৷ তৃণমূল লড়বে বাংলার ৪২টি আসনেই৷ নির্দেশ বাস্তবায়ণের জন্য দলের জেলা সভাপতিদের নির্দেশও দিওয়া হয়েছে৷

এই প্রেক্ষাপটে দলের ডাকসাইটে নেতার গলায় পাচনের দাওয়াই৷ জেলা দু’টি সহ বাংলার সব আসনেই তৃণমূল প্রার্থীরা জিতবেন বলে জোড় গলায় দাবি করেন অনুব্রত৷ এছাড়া বিজেপি নেত্রী ভারতী ঘোষ সমন্ধেও এদিন সরব ছিলেন অনুব্রত৷ গেরুয়া শিবিরের নেতারা এবার রাজ্যবাসীর হাতে মার খেতে পারেন বলেও হুঁশিয়ারি দেন তিনি৷প্রসঙ্গত, তৃণমূল কংগ্রেসের দাপুটে নেতা এবং বীরভূম জেলার সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল কয়েক মাস ধরেই পাচনের কথা বলে আসছেন। সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে এই পাচনের প্যাঁচেই শত্রু শিবিরকে ঘায়েল করার বিধান দিয়েছেন দিদির আদরের ভাই কেষ্ট। কিন্তু কিভাবে ব্যবহার করা হবে এই পাচন ? তা তৃণমূল কংগ্রেসের বীরভূম জেলার সকল কর্মীদের শিখিয়ে দেবেন বলে জানিয়েছেন অনুব্রত মণ্ডল। সাঁইথিয়ার একটি সভা থেকে সেই পাচনের ব্যবহার সম্পর্কে কর্মীদের বার্তা দিয়েছেন তিনি। অনুব্রত বলেছেন, “বুথ কমিটির সাথে আমি বৈঠক করবো এবং উর্বর জমি আছে। পাচনের বাড়ি দিয়ে কিভাবে ভোট করতে হয় সেটা আমি আপনাদের শিখিয়ে দেবো। ঠিক সেভাবে ভোট করবেন।” এরপরই অনুব্রত মণ্ডল তার নিজস্ব মেজাজে বলেন,”পাগলের মতো কথা, ওর দোষ নেই, বয়স ৭৫ থেকে ৭২ ছিল। একটু লম্বা এখন নেমে গিয়েছে, মাথা ঠিক থাকে! ব্রেন যাওয়ার দিন হয়ে গিয়েছে।”