বিজেপির অন্তর্কলহ প্রকাশ্যে, একই কেন্দ্রে মনোনয়ন পেশ ৪ প্রার্থীর, জানুন সেই কেন্দ্র

ওয়েব ডেস্ক, ১০ এপ্রিলঃ মনোনয়ন পত্র জমা দিলেন রানাঘাট লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী ডাঃ মুকুটমণি অধিকারী। তবে বিজেপির মনোনয়ন পেশকে কেন্দ্র করে আবারও প্রকোট হল বিজেপির অন্তর্কলহ। কারণ, এদিন বিজেপির তরফে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন ৪ জন। আর তা ঘিরেই শুরু হয়েছে জল্পনা। যদিও গোষ্ঠী কোন্দলের বিষয়টি মানতে নারাজ স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্ব।

Top News

সোমবার থেকেই নদিয়ার রানাঘাট লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী মুকুটমণি অধিকারীর মনোনয়ন পেশকে কেন্দ্র করে জল্পনা শুরু হয় রাজনৈতিক মহলে। আদৌ তিনি মনোনয়ন পেশ করতে পারবেন কিনা তা নিয়েও প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। ঘটনা আদালত পর্যন্তও গড়ায়। এই পরিস্থিতিতেই মঙ্গলবার অতিরিক্ত জেলাশাসকের দপ্তরে মনোনয়ন জমা দিলেন মুকুটমণি অধিকারী। তবে তাঁর আবেদন গৃহীত হবে না খারিজ, তা নির্ভর করছে হাই কোর্টের রায়ের উপর।

তাঁর এই মনোনয়ন পেশকে ঘিরে শুরু হয়েছে নতুন জল্পনা। এদিন বিজেপির তরফে মনোনয়ন পেশ করেছেন মোট ৪জন। মুকুটমণি ছাড়া বাকিরা হলেন, নদিয়া বিজেপির সাধারণ সম্পাদক জগন্নাথ সরকার, বিজেপির জেলাস্তরের নেতা সুজিত বিশ্বাস ও বিশিষ্ট অধ্যাপক মানবেন্দ্র রায়। কিন্তু একই কেন্দ্রে কেন মনোনয়ন পেশ করলেন ৪ প্রার্থী?

এবিষয়ে নদিয়া বিজেপির সাধারণ সম্পাদক জগন্নাথ সরকার জানিয়েছেন, ‘দলের তরফে ২জনকে মনোনয়ন পেশের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।’ কারণ হিসেবে তিনি জানিয়েছেন, মুকুটমণি অধিকারীর মনোনয়ন গৃহীত হবে কিনা, তা নিয়ে যেহেতু কোনও নিশ্চিত তথ্য পাওয়া যাচ্ছে না, সেই কারণেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে দল। তাঁর অভিযোগ, বাকি ২ প্রার্থী দলের অনুমতি ছাড়াই মনোনয়ন পেশ করেছেন।

তবে এ বিষয় মানবেন্দ্র রায় এবং সুজিত বিশ্বাসের দাবি, দলের নির্দেশেই মনোনয়ন জমা দিয়েছেন তাঁরা। তবে দলের পছন্দের তালিকার শীর্ষে মুকুটমণি। তা নিয়ে দ্বিমত প্রকাশ করেন নি কেউই। দলের অন্তর্কলহ প্রসঙ্গে তাঁরা জানিয়েছেন, ব্যক্তিগত ভাবে তাঁদের সম্পর্ক অত্যন্ত ভাল। তাই গোষ্ঠী কোন্দলের কোনও প্রশ্নই নেই। পাশাপাশি তাঁরা বলেন, সংগঠন বড় হয়েছে, বিজেপির তরফে যেই প্রার্থী হোন না কেন, তাঁর জয় নিশ্চিত। সবমিলিয়ে বলা যেতেই পারে, প্রার্থীপদ নিয়ে অনিশ্চয়তার মাঝে রানাঘাট কেন্দ্রে জয় নিয়ে বেশ আশাবাদী গেরুয়া শিবির।

যদিও এবিষয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা নেতৃত্বের দাবী, বিজেপি এরাজ্যে তাদের পছন্দের প্রার্থী বাছাই করতে পারে না। তাদের দলের মধ্যে যে অন্তর্কলহ র‍য়েছে তা স্পষ্ট। আমরা আশাবাদী যে বিজেপির জান্নাত বাজে আপত করে তৃণমূল কংগ্রেস জয় লাভ করবে।