সোনার চেইন হারিয়ে ফেলে বকুনি খাওয়ার ভয়ে আত্মঘাতী কলেজ ছাত্রী

বিশ্বজিৎ মণ্ডল, মালদাঃ সোনার চেইন হারিয়ে যাওয়ায় বাবা মায়ের বকুনির ভয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মঘাতী করল এক কলেজ ছাত্রী। এই চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে পুরাতন মালদার মঙ্গলবাড়ির সামুনডাই কলোনি এলাকাতে।

Top News

পরিবার সূত্রে জানা যায়, আত্মঘাতী ওই কলেজ ছাত্রীর নাম মান্টি রায়(২১)। ওই কলেজ ছাত্রী স্থানীয় গৌড় মহাবিদ্যালয় থেকে এডুকেশন বিষয়ে অনার্স নিয়ে এবারেই বিএ ফাইনাল পরীক্ষা দিয়েছে। গতকাল রাত্রি আটটা নাগাদ তার বাড়িতে তার বাবা আসলে ভেতর থেকে দরজা লাগা অবস্থা দেখতে পায় এবং দীর্ঘ খন ডাকাডাকি করলে কোন সাড়া না পাওয়ায় সিঁড়ি ঘর দিয়ে ঢুকিয়ে দেখে তার মেয়ে তার সবার ঘরে গলায় শাড়ি জড়িয়ে সিলিং ফ্যানে ঝুলছে, ঝুলন্ত অবস্থায় মেয়েকে দেখে বাবা হকচকিয়ে যায়, চিৎকার চেচাঁমেচি করলে স্থানীয় লোকজন ছুটে আসে এবং তড়িঘড়ি তাকে মালদা মেডিকেল কলেজ নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে।

আত্মঘাতী কলেজ ছাত্রীর বাবা বাপ্পা রায় জানান, তার মেয়েকে যখন হসপিটালে নিয়ে যাওয়া হয় তখন তার কাছ থেকে একটি সুইসাইড নোট পাওয়া যায় এবং তাতে লেখা ছিল যে তার গলার সোনার চেইনটি হারিয়ে ফেলেছে। তাই সে ভয়ে আত্মহত্যা করেছে।

তবে এলাকাবাসীরা জানায়, ওই কলেজ ছাত্রী এলাকায় খুব নম্র স্বভাবের মেয়ে বলে পরিচিত ছিল। কিন্তু হঠাৎ করে বকুনির ভয়ে এই রকম সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলবে তা কেউ ভাবতে পারেনি। এই ঘটনার ফলে আত্মঘাতী  যুবতীর মা দেবী রায় বারেবারে জ্ঞান হারাচ্ছেন আর বলছেন যে, সোনার চেইন যদি হারিয়ে গিয়েছিল তবে কেন তাদেরকে জানালো না, সে নিজে নিজে কেন এই সিদ্ধান্ত নিতে গেল এবং এই ঘটনার ফলে গোটা এলাকায় শোকের ছায়া নামে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।