উত্তরের খুদে গায়িকা অলির স্যাড সং “দুয়া” ভাইরাল সোশ্যাল মিডিয়ায়

তুষার কান্তি বিশ্বাস, ১৪ জুলাইঃ বয়স তার খুব বেশি হলে ৪ হবে, এর বেশি তো একেবারেই নয়। নাম অলি। বলা যায় সার্থক সেই নাম। ভ্রমরের মতোই গুনগুন করে ইতিমধ্যেই সবার মন জয় করে ফেলেছে সে। একটি ভিডিয়োতে সেই অলির দেখা মিলল মিষ্টি ভঙ্গিতে। রেকর্ডিং স্টুডিওতে তুলনায় ইয়াবড়ো এক হেডফোন কানে লাগিয়ে গান গাইছে অলি। তাও আবার যে সে গান নয়।

Top News

অরিজিৎ সিং-এর গাওয়া বেশ কঠিন নোটের একটি জনপ্রিয় গান। সম্প্রতি সোশাল মিডিয়াতে ভাইরাল হয়েছে সেই ভিডিয়ো। যেখানে শুরুতেই দেখা যাচ্ছে কারও পরোয়া না করেই স্টুডিওময় কার্যত লাফিয়ে বেড়াচ্ছে এই খুদে শিল্পী। এরপরই কেউ একরকম জোর ধমক দিয়েই দাঁড় করালেন অলিকে।

আর তারপরই শুরু হল অলির ম্যাজিক। গেয়ে ফেলল জলের মতো মুখস্থ সাংহাই ছবির সেই বিখ্যাত স্যাড সং “দুয়া”। এই গান অরিজিৎ সিং শুনেও যে তাঁকে ১০০-তে ১০০-ই দেবেন তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে এই খুদে যে মোটেই শান্ত-শিষ্ট নয় তার টের মিলেছে এই ভিডিয়োটি-সহ তার অন্যান্য ভিডিয়ো গুলোতেও।

এটি ছাড়াও ইউটিউবে তার বেশ কিছু ভিডিয়ো রয়েছে। তাতেও কার্যত দৌড়ে, নেচে, হেসে বেড়াচ্ছে সে। কখনও বলছে ‘জল খাব’, কখনও আবার বলছে ‘আর পারছি না’, কখনও আবার হেডফোন খুলে ফেলার আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছে সে। তবে এসবের মাঝেও গানে কিন্তু এতটুকু ভুল হচ্ছে না কোথাও। ছোট ছোট ভাঁজগুলো একেবারে নিখঁতভাবে রপ্ত করে, ব্যাক গ্রাউন্ড মিউজিকের সঙ্গে তাল মিলিয়ে গেয়ে চলেছে অলি।

শক্ত উচ্চারণে কোথাও খানিকটা জড়িয়ে গেলেও সামলে নিচ্ছে অভিজ্ঞ ভঙ্গিতেই। কিন্তু আচার-আচারণে এটুকু স্পষ্ট যে গানের কথা বোধগম্য হওয়া তো দূরের কথা, কেন যে তাকে এমন কঠিন জায়গায় দাঁড় করিয়ে গান গাওয়ানো হচ্ছে তাও মাথায় ঢুকছে না তার মোটেই।

সব মিলিয়ে খুদে গায়িকার এমন মিষ্টি ভিডিয়ো বেশিরভাগ নেটিজেনদেরই মন জয় করলেও অনেকেই কিন্তু বলছেন শিশুকে ব্যবহার করে সোশাল মিডিয়ায় কার্যত মুনাফা নিচ্ছেন ক্যামেরার নেপথ্যের মানুষগুলো। তবে এসব তর্ক বিতর্ক বাদ দিয়ে এই ভিডিয়ো-র শেয়ার কিন্তু কম হচ্ছে না। খুদের এই মিষ্টি স্টাইলে ইতিমধ্যেই কুপোকাত গোটা নেট পাড়া।